মৃত্যুর ঝুঁকি বেড়েছে ১১৮ গুণ! করোনা রোগীদের নিয়ে গবেষণায় চাঞ্চল্যকর প্রকাশ - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, 26 October 2022

মৃত্যুর ঝুঁকি বেড়েছে ১১৮ গুণ! করোনা রোগীদের নিয়ে গবেষণায় চাঞ্চল্যকর প্রকাশ



করোনা থেকে সেরে ওঠার পরও কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে।  লন্ডনের কুইন্স মেরি ইউনিভার্সিটির এক গবেষণায় করোনার পরবর্তী প্রভাব নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে এসেছে।



 এই সমীক্ষায় পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে যারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তাদের রক্ত ​​জমাট বাঁধা এবং হার্ট সংক্রান্ত রোগের ঝুঁকি বেশি।  শুধু তাই নয়, অ-সংক্রমিতদের তুলনায় আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যুর ঝুঁকিও বেশি।



 কুইন্স মেরি ইউনিভার্সিটি লন্ডনের 54 হাজারেরও বেশি সংক্রমিত এবং অ-সংক্রমিত মানুষের উপর এই গবেষণাটি করেছে।  গবেষণায় দেখা গেছে যে এই ধরনের করোনা রোগী, যারা হাসপাতালে ভর্তি হননি, তাদের রক্ত ​​জমাট বাঁধার ঝুঁকি অ-সংক্রামিত রোগীদের তুলনায় 2.7 গুণ বেশি।  এছাড়াও, এই ধরনের রোগীদের মৃত্যুর ঝুঁকি অ-সংক্রামিতদের তুলনায় 10.2 গুণ বেশি পাওয়া গেছে।


 গবেষণায় আরও জানা গেছে যে যারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তাদের হৃদরোগের ঝুঁকি বেড়েছে।  একই সঙ্গে যেসব করোনা রোগীকে হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন নেই, তাদের রক্ত ​​জমাট বাঁধার আশঙ্কাও বেশি।




হাসপাতালে ভর্তি হওয়া করোনা রোগীদের রক্ত ​​জমাট বাঁধা এবং হৃদরোগের ঝুঁকি অ-সংক্রামিত ব্যক্তিদের তুলনায় বেশি।



 হাসপাতালে ভর্তি করোনা রোগীদের রক্ত ​​জমাট বাঁধার ঝুঁকি 27.6 গুণ বেশি, হার্ট ফেইলিউরের ঝুঁকি 21.6 গুণ, স্ট্রোকের ঝুঁকি 17.5 গুণ এবং হৃদযন্ত্রের অ্যারিথমিয়ার ঝুঁকি 10 গুণ বেশি।  শুধু তাই নয়, এই ধরনের করোনা রোগীদের মৃত্যুর ঝুঁকিও অ-সংক্রমিত রোগীদের তুলনায় 118 গুণ বেশি।



 একইভাবে, যেসব করোনা রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করার প্রয়োজন পড়েনি, তাদের রক্ত ​​জমাট বাঁধার ঝুঁকি 2.7 গুণ বেশি।  এ ধরনের রোগীদের মৃত্যুর ঝুঁকিও 10 গুণের বেশি।



 গবেষণায় আরও দেখা গেছে, করোনায় আক্রান্ত হওয়ার 30 দিনের মধ্যে রক্ত ​​জমাট বাঁধা এবং হার্ট সংক্রান্ত রোগের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি।  তবে এই বিপদ করোনা থেকে সেরে ওঠার পরও দীর্ঘ সময় ধরে থাকতে পারে।



এখন আগারকুইনস মেরি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা উদ্বেগ বাড়িয়েছে, অন্যদিকে ক্যালিফোর্নিয়ার স্মিড হার্ট ইনস্টিটিউটও একই বিষয়ে একটি গবেষণা করেছে।  সেই গবেষণায় জানা গেছে, করোনার কারণে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বেড়েছে।  গবেষণা অনুসারে, 24 থেকে 44 বছর বয়সী মানুষের মধ্যে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি দেখা গেছে।  পরিসংখ্যানটি আরও রয়েছে যে, করোনা সময়ের আগে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া মানুষের সংখ্যা ছিল 1 লাখ 44 হাজার, কিন্তু করোনার সময়ে এই সংখ্যা দাঁড়ায় 1 লাখ 64 হাজার, অর্থাৎ সরাসরি 14 শতাংশ বেড়েছে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad