পৃথিবীর সপ্তম আশ্চর্য ! - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Saturday, 5 November 2022

পৃথিবীর সপ্তম আশ্চর্য !

 






 ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন দিবস পালিত হয়। ১৯৮০ সালে প্রথমবারের মতো জাতিসংঘের পর্যটন সংস্থা এই দিবসটি উদযাপন শুরু করে।  পৃথিবীতে এমন অনেক সুন্দর এবং ইতিহাস সমৃদ্ধ পর্যটন স্থান রয়েছে, যা বিশ্বের সপ্তাশ্চর্যও এর অন্তর্ভুক্ত। তাহলে আসুন এমন সাতটি আশ্চর্যের স্থান ও সেই জিনিস সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক

 

 ১.তাজমহল, ভারত:

 তাজমহল উত্তরপ্রদেশের আগ্রায় যমুনা নদীর তীরে অবস্থিত, এটি মুঘল সম্রাট শাহজাহান তার স্ত্রী মমতাজের স্মরণে নির্মাণ করেছিলেন। ভালোবাসার প্রতীক এটি সাদা মার্বেল পাথর দিয়ে তৈরি।  ২০,০০০জন কারিগর দ্বারা নির্মিত হয়েছিল।

 

২.ক্রাইস্ট দ্য রিডিমার, ব্রাজিল:

 ব্রাজিলের ১২৫ ফুট লম্বা ক্রাইস্ট দ্য রিডিমার বিশ্বের সপ্তাশ্চর্যের একটি।  ফ্রান্সে হ্যাটার দা সিলভা কস্তার নকশায় নির্মিত হয়েছিল।  এই মূর্তিটি পাহাড়ের চূড়ায় রয়েছে।  বছরে তিন থেকে চারবার এই মূর্তির ওপর বজ্রপাত হয়।



 ৩.চীনের প্রাচীর:

 চীনের প্রাচীর সপ্তাশ্চর্যের একটি।  চীনের প্রথম শাসক কিন শি হুয়াং এই প্রাচীর নির্মাণ করেন।  ২১,১৯৬ কিলোমিটার দীর্ঘ এবং বিশাল প্রাচীর নির্মাণ প্রায় ২০ বছরে সম্পন্ন হয়েছিল।  এই প্রাচীর নির্মাণের পেছনে ছিল তার সাম্রাজ্য রক্ষা।  চীনের গ্রেট ওয়ালকে পৃথিবীর দীর্ঘতম কবরস্থান বলা হয়।  এটি নির্মাণে ১০ লক্ষের ও বেশি লোক নিহত হয়েছিল বলে জানা গেছে।

 

৪. মাচু পিচু, পেরু:

 দক্ষিণ আমেরিকার পেরুতে অবস্থিত মাচু পিচুকে বলা হয় 'লস্ট সিটি অফ দ্য ইনকা'।  এটি পেরুর একটি ঐতিহাসিক মন্দিরও।  ১৯৮৩ সালে, ইউনেস্কো মাচু পিচুকে বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করে।  এটি বিশ্বের সাতটি আশ্চর্যের একটি।

 

৫. চিচেন ইটজা, মেক্সিকো:

 মেক্সিকোর চিচেন ইটজা সপ্তাশ্চর্যের অন্তর্ভুক্ত।  এটি মেক্সিকোতে সেরা সংরক্ষিত প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান হিসাবে বিবেচিত হয়।  এর ইতিহাস ১২০০ বছরেরও বেশি পুরনো।  এখানে অনেক পিরামিড, মন্দির, খেলার মাঠ রয়েছে।  এর বিশেষত্ব হল এখানে অদ্ভুত আওয়াজ শোনা যায়।



৬.পেট্রা, জর্ডান:

 পেট্রা জর্ডানের একটি ঐতিহাসিক শহর, যা গোলাপী রঙের বেলেপাথর দিয়ে তৈরি করা হয়েছে।  এই রঙের কারণে পেট্রা রোজ সিটি নামেও পরিচিত।  পেট্রাতে অনেক মন্দির ও সমাধি রয়েছে।


৭.কলোসিয়াম, ইতালি:

 ইতালির কলোসিয়ামটি সম্রাট টাইটাস ভেসপাসিয়ান নির্মাণ করেছিলেন।  বলা হয় যে এটি ৭০ খ্রিস্টাব্দ থেকে ৮২ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে নির্মিত হয়েছিল।  এটি তৈরি করতে প্রায় ৯ বছর সময় লেগেছে।  রোমের এই কলোসিয়ামটি বিশ্বের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ এবং প্রাচীন অ্যাম্ফিথিয়েটার।  

 

 

 

 

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad