কিভাবে বুঝবেন যে আপনার শিশুর বৃদ্ধি থেমে গেছে? - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Friday, 18 November 2022

কিভাবে বুঝবেন যে আপনার শিশুর বৃদ্ধি থেমে গেছে?


সন্তানের জন্মের পর বাবা-মা শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে নানা পদ্ধতির চেষ্টা করেন।  এত চেষ্টার পরও যদি ভালো ফল না আসে, তবে শুধুই হতাশা। প্রতিটি শিশু অন্যের থেকে আলাদা হতে পারে, তবে আপনি যদি খুব বেশি পার্থক্য দেখতে পান তবে সাবধান হন।


শিশুর বিকাশের কথা বললে, 4 মাসে শিশুর ওজন তার জন্মের ওজনের 2 গুণ হওয়া উচিৎ।  শিশুটি এক বছর পূর্ণ করার সময়, তার ওজন জন্মের সময় ওজনের 3 গুণ হওয়া উচিৎ।  এর সাথে, যখন শিশুটি 2 বছর পূর্ণ করবে, তখন তার ওজন জন্মের সময় ওজনের প্রায় 4 গুণ হওয়া উচিৎ।  আপনার সন্তানের প্রতি মনোযোগ দিতে হবে।  আপনার শিশু সক্রিয় থাকুক বা না থাকুক, তার তৎপর এবং ফিটনেসের দিকে মনোযোগ দিন।


শিশুর ওজন স্বাভাবিকের চেয়ে কম হলে এর অনেক কারণ থাকতে পারে। ওজন বাড়ানোর ব্যবস্থা নেওয়ার আগে কারণটা জানা জরুরি।  ছোটবেলা থেকেই শিশুর খাদ্যাভ্যাস, কার্যকলাপের প্রতি কড়া নজর রাখতে হবে।  আজ আমরা দ্য নিউট্রিওয়াইজ ক্লিনিক, লখনউ-এর পুষ্টিবিদ নেহা সিনহার সাথে কথা বলব, যিনি আমাদের বলবেন এই ধরনের শিশুদের মধ্যে কী কী অভাব রয়েছে এবং কীভাবে তা কাটিয়ে ওঠা যায়।


কিভাবে বুঝবেন যে আপনার শিশুর বৃদ্ধি থেমে গেছে?

প্রথম উপায় হল শিশুর উচ্চতা এবং ওজনের দিকে মনোযোগ দেওয়া।  তার ওজন যদি তার উচ্চতার তুলনায় অন্যান্য শিশুদের তুলনায় খুব কম হয়, তাহলে তা চিন্তার বিষয়।  শিশু বিশেষজ্ঞরা জন্ম থেকে 2 বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের উচ্চতা এবং ওজন নিরীক্ষণ করেন।  2 বছর বয়সের পর শিশুর ফিটনেস জানার জন্য আমরা ওজন, উচ্চতার সাথে BMI ও দেখি।


একটি শিশুর বৃদ্ধি বন্ধ বা ওজন হারানোর লক্ষণ কি কি?

একজন বিশেষজ্ঞের সাহায্যে, আপনি বুঝতে সক্ষম হবেন বর্তমানে শিশুটির ওজন কত।  বাড়িতে, আপনার শিশুর পোশাক কেমন মানানসই তা দেখে নিন।  শিশু যদি প্রতি ঋতুতে একই আকারের জামাকাপড় পরে থাকে, তবে আপনার একজন বিশেষজ্ঞের সাথে দেখা করা উচিত।  গোসল করার সময় আপনি আপনার শিশুর পাঁজর দেখতে পারেন।  যে পাঁজরগুলো আটকে থাকে বা স্পষ্টভাবে দেখা যায় তা নির্দেশ করে যে শিশুর ওজন কম হতে পারে।


শিশুর ওজন না বাড়ার কারণ কি কোনো রোগ হতে পারে?

সময়ের আগে জন্ম নেওয়া শিশুদের প্রায়ই কম ওজন হয়।  কিন্তু বড় হওয়ার পর শিশুরা বেড়ে উঠতে না পারলে তার কারণ পুষ্টির অভাব। এছাড়াও বেশ কিছু রোগ রয়েছে যা ক্ষুধা দমন করতে পারে বা শরীরকে পুষ্টির ব্যবহার থেকে বিরত রাখতে পারে।  এটাও একটা কারণ হতে পারে একটানা দীর্ঘদিন ধরে ওষুধ সেবন করা।  কিছু ওষুধের কারণে প্রায়শই শিশুরা ক্ষুধা কমে যায় এবং তাদের ওজন স্থির থাকে।  আরেকটি কারণ খাদ্য এলার্জি।  তৃতীয় যে সমস্যাটি দেখা যায় তা হল হরমোন বা হজমের সমস্যা।  অনেক সময় পাকস্থলীতে পর্যাপ্ত পুষ্টি না পাওয়ায় ওজন বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে যায়।


কিভাবে শিশুদের খাদ্যাভ্যাস তৈরি করবেন?


শিশু দিনের বেলায় পর্যাপ্ত পরিমানে ক্যালোরি গ্রহণ করছে কি না সেদিকেও আপনাকে মনোযোগ দিতে হবে। যদি শিশুটি সক্রিয় বলে মনে হয় না, তবে তার উচ্চ ক্যালোরির প্রয়োজনও থাকতে পারে।  এছাড়াও শিশুর মানসিক স্বাস্থ্য বিবেচনা করুন।  যেসব বাড়িতে বাবা-মায়ের মধ্যে কলহ থাকে সেখানে শিশুরা প্রায়ই অসুস্থ হয়ে পড়ে।


শিশুদের কোন অভ্যাস থেকে দূরে রাখা উচিৎ?


সন্তানকে সঠিক উপায়ে ওজন বাড়াতে সাহায্য করা উচিৎ। যদি তারা খাবারের জন্য অপেক্ষা করে, তার মানে তারা পর্যাপ্ত ক্যালোরি পাচ্ছে।  শিশুর সুস্বাস্থ্যের জন্য তাকে টিভির সামনে না বসিয়ে সবার সাথে টেবিলে খাবার দিতে হবে।  যতটা সম্ভব ইলেকট্রনিক গ্যাজেট থেকে তাদের দূরে রাখুন।  এটি তার অভ্যাসকে প্রভাবিত করতে পারে।  ডায়েটিশিয়ানরা বাবা-মা এবং পরিবারের সাথে কাজ করে তাদের বুঝতে সাহায্য করে যে কেন খাদ্য গ্রহণ অপর্যাপ্ত এবং এমন একটি পরিকল্পনা তৈরি করুন যা পরিবার-বান্ধব।  নেহা বলেন, আমরা শিশুর বিকাশের জন্য একের পর এক কাজ করি।  এতে পরিবার অনুযায়ী নিরামিষ বা আমিষ খাদ্য নির্ধারণ করা হয়।  কখনও কখনও ধর্মীয় বা সাংস্কৃতিক বিশ্বাসও খাদ্যাভ্যাসকে প্রভাবিত করে, এমন পরিস্থিতিতে আমরা অভিভাবকদেরও পরামর্শ দিই।


কোন ধরনের খাবার খাওয়ালে শিশুর ওজন বাড়বে?  

বিশ্বব্যাপী মহামারীর কারণে, বেশিরভাগ মানুষ বর্তমানে বাড়ি থেকে কাজ করছেন।  আপনার সন্তানের প্রতি ফোকাস করার এটাই সঠিক সময়।  আপনি যদি উদ্বিগ্ন হন যে আপনার সন্তানের ওজন কমে যাচ্ছে, তাহলে প্রথমেই আপনার সন্তানের ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা।  আপনি বাড়িতে তাকে দুধের দ্রব্য যেমন বাটার মিল্ক, দই বা ডিম দিতে পারেন।  প্রোটিনের পরিমাণ বাড়াতে শিশুকে সব ধরনের ডাল, পিনাট বাটার, বাদামের মাখন, শিমের স্যুপ খাওয়ান।  বাদাম, বীজ এবং অ্যাভোকাডো হল স্বাস্থ্যকর চর্বির উৎস যা আপনার শিশুর ওজন বাড়াতে সাহায্য করে।  সিরিয়াল, সালাদ, পাস্তা এবং সবজিতে বাদাম এবং বীজ যোগ করার চেষ্টা করুন।  সকালের নাস্তায় স্মুদি তৈরি করুন।  স্মুদিগুলি পুষ্টি এবং ক্যালোরি পাওয়ার একটি সহজ উপায়।  বীজ, শুকনো ফল এবং চকোলেট চিপস দিয়ে তৈরি গ্রানোলাও পূর্ণ চর্বিযুক্ত দইয়ের সাথে মেশানো যেতে পারে।  আপনার বাচ্চাকে খাবার কেনাকাটা এবং খাবার তৈরিতে তাদের আগ্রহকে উৎসাহিত করার জন্য জড়িত করুন।

এই সব বিষয়ে মনোযোগ দিয়ে, আপনি সময়মত আপনার সন্তানের সঠিক বিকাশ ঠিক করতে পারেন।  উচ্চ পুষ্টি, সুষম খাদ্য এবং অভ্যাসের মাধ্যমে আপনি সহজেই এই সমস্যার সমাধান করতে পারবেন।  যেকোনো সাহায্যের জন্য একজন বিশেষজ্ঞ বা ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad