শিশুদের জিনিস মুখে দেওয়ার অভ্যাস স্বাস্থ্যের জন্য ভারী হতে পারে - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 15 November 2022

শিশুদের জিনিস মুখে দেওয়ার অভ্যাস স্বাস্থ্যের জন্য ভারী হতে পারে


ছোট বাচ্চাদের মধ্যে একটি অভ্যাস সাধারণ।  তারা সরাসরি মুখে কিছু রাখে।  শিশুরা খুব দ্রুত খাদ্য ও পানীয় সম্পর্কে জানতে পারে।  জন্মের পর ছয় মাস তাদের মধ্যে এই অভ্যাস থাকে।  শিশুদের এই অভ্যাস অভিভাবকদের অভিভূত করতে পারে।  প্রায়শই মায়েরা শিশুকে খেলনা নিয়ে মেঝেতে ফেলে রেখে ঘরের কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।  এমন পরিস্থিতিতে শিশু খেলনার সাথে তার আশেপাশের জিনিসগুলো মুখে দিতে পারে।  বাচ্চাদের এই অভ্যাসের ধাক্কা আপনাকে সহ্য করতে হবে না, এর জন্য আপনাকে জানতে হবে বাচ্চাদের সামনে কী রাখা উচিত এবং কী করা উচিত নয়।  কারণ এটা সম্ভব যে আপনি যদি বাচ্চাদের আশেপাশে বিপজ্জনক জিনিস রাখেন তবে তারা সেগুলি মুখে দেয়।  যেমন ফিনাইল, ওষুধ, ধারালো বস্তু ইত্যাদি।


 নবজাতকের কিছু খাওয়ার অভ্যাস দেখে অনেক বাবা-মা বুঝতে পারেন না কেন তাদের সন্তান এমন করছে।  এটি একটি গুরুতর সমস্যা হতে পারে।  কারণ শিশুদের এই আসক্তি থাকলে পরবর্তীতে তাদের স্থূলতা, পেটে কৃমিসহ নানা রোগ হতে পারে, অনেক ক্ষেত্রে তা মারাত্মকও হতে পারে।  বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিভিন্ন বয়সে শিশুদের খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তন হয়।  খারাপ জিনিস খাওয়ার অভ্যাস শিশুর স্বাস্থ্যের ক্ষতি করতে পারে।  বিশেষজ্ঞ ঘাটশিলা ইএসআই-এর চাইল্ড স্পেশালিস্ট অভিষেক মুন্ডুর কাছ থেকে, আমরা জানি শিশুদের লালন-পালনের সময় কী কী মনে রাখতে হবে।


 বাচ্চাদের সামনে এই জিনিসগুলো রাখবেন না


 নবজাতক নির্দোষ, এমন পরিস্থিতিতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক অভিষেক জানান, জিনিস নিয়ে খেলতে গিয়ে মুখে ঢুকিয়ে দেন।  এ অবস্থায় ওষুধ, ফিনাইল, খাদ্যদ্রব্য, গরম পানি, ব্যাটারি, ধারালো জিনিস যেমন নখ, ছোট খেলনা ইত্যাদি কাছে রাখা উচিত নয়।


 খোলা জায়গায় টাকা রাখবেন না, বিশেষ করে কয়েন


 ডাক্তাররা বলছেন, খেলতে ভুলেও বাচ্চাদের টাকা বা কয়েন দেওয়া উচিত নয়।  আমরা প্রতিদিন এমন অনেক ঘটনা দেখি যেখানে একটি মুদ্রা শিশুর মুখে প্রবেশ করে।  এটি খুব গুরুতর এবং এমনকি মারাত্মক হতে পারে।  এমতাবস্থায় শিশুদের খেলার সময় খেয়াল রাখা অভিভাবকদের দায়িত্ব।  যাতে সে মুখে কিছু রাখলে তা বের করা যায়।  প্রথমত, বাচ্চাদের কয়েন দেবেন না, ভুল করে বাচ্চা যদি কয়েনটা মুখে নিয়ে ফেলে, তাহলে আপনি সেটাকে কাত করে পিঠে চেপে দিন, এতে করে কয়েন বেরিয়ে আসবে।  যদি এটি দূরে না যায়, তাহলে আপনার জরুরি চিকিৎসার প্রয়োজন হতে পারে।  যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আপনার শিশুকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া উচিত।  শিশুদের ছোট মুখ দিয়ে বুঝিয়ে বলুন, তাদের সব অঙ্গ ছোট।  এমতাবস্থায় এই বাক্যটি খুবই বিপজ্জনক প্রমাণিত হতে পারে।


বাচ্চাদের নরম খেলনা দিন


 চিকিৎসকরা বলছেন যে শিশুদের খাওয়ানোর নির্বাচন খুব সাবধানে করা উচিত।  বর্তমান সময়ে ভালো দোকান থেকে খেলনা কিনলে তাতে বাচ্চাদের বয়স উল্লেখ থাকে।  অভিভাবকদের এই যত্ন নেওয়া উচিত।  আপনার শিশুর বয়স যদি ছয় মাস হয়, তাকে খেলার জন্য শুধুমাত্র নরম খেলনা দিন।  যাতে মুখে দিলেও কোনো সমস্যা না হয়।  শিশুদের ছোট খেলনা দেওয়া উচিত নয়।  কারণ এতে অনেক সময় খেলনার অংশ শিশুর পেটে চলে যায়, যা অনেক ক্ষতি করে।  এ ছাড়া শিশুকে মাটিতে খেলার জন্য ছেড়ে দেওয়া উচিত নয়।  এটা সম্ভব যে সে শুধুমাত্র মাটি খায়।  চক ইত্যাদিও শিশুদের কাছে রাখা উচিত নয়, তা না হলে শিশুও তা খেতে পারে।  আপনার বাড়ির দেয়ালে চুন থাকলে আপনার শিশু তা আঁচড়ে ফেলতে পারে।  এটি খেলে শিশুর পেটে সংক্রমণ হতে পারে এবং সে অসুস্থ হয়ে পড়তে পারে।  অভিভাবকদের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা সত্ত্বেও শিশুরা এই অভ্যাসগুলি ছাড়তে পারছে না।


 পাঁচ বছর বয়স পর্যন্ত বিশেষ যত্ন নিন


 এটি পিতামাতার দায়িত্ব যে আপনার সন্তানের বয়স পাঁচ বছর না হওয়া পর্যন্ত আপনি তার প্রতিটি কাজের দিকে মনোযোগ দিন।  পাঁচ বছর বয়সের পর শিশু বুদ্ধিমান হয়।  এর মধ্যে তাকে ভালো-মন্দ অভ্যাসগুলো বুঝিয়ে দিতে পারেন।


 মাটিতে খেলে এ রোগ হতে পারে


 ডাক্তার অভিষেক বলেন, যদি আপনি আপনার শিশুকে মাটিতে ফেলে দূরে চলে যান এবং শিশুটি মাটি খায়, তাহলে সে অনেক ধরনের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত রোগে আক্রান্ত হতে পারে।  কাদামাটি খেলে শিশুদের রক্তের ঘাটতি হয়।  কাদামাটি খেলে শিশুরা ভিটামিন ও মিনারেল শোষণ করে না।  কারণ পেটে কাদামাটি থেকে যায়, যা শিশুর পেটে ব্যথা করতে পারে।  পেটে কৃমি হতে পারে এবং এর কারণে শিশু পরে পাথরের অভিযোগ করতে পারে।  আপনি যদি বাচ্চাদের লালন-পালনের বিষয়ে কী করবেন এবং কী করবেন না তা সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম না হন, তাহলে আপনার উচিত একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের কাছ থেকে চিকিৎসার পরামর্শ নেওয়া।  কারণ এই জিনিসটি ছোট হলেও শিশুর যত্নের জন্য খুবই জরুরি।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad