দেবতাদের এই বাহন দেখা শুভ নাকি অশুভ? শাস্ত্র কি বলে - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Friday, 18 November 2022

দেবতাদের এই বাহন দেখা শুভ নাকি অশুভ? শাস্ত্র কি বলে

 



আপনি প্রায়শই স্বপ্নে বা বাস্তবে মহিষ, গরুড় বা কাক দেখতে পাবেন। দেবতাদের এসব বাহন দেখা কি শুভ নাকি অশুভ? আসুন জেনে নিই এই বিষয়ে শাস্ত্র কি বলে।


সনাতন ধর্মে দেব-দেবীর যাত্রার জন্য অনেক পশু-পাখির কথা বলা হয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, ভগবান শিবের জন্য নন্দী, গণেশের জন্য ইদুর, মা লক্ষ্মীর জন্য পেঁচা এবং ভগবান বিষ্ণুর জন্য গরুড়কে তাদের বাহন হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে। কথিত আছে যে যখনই পৃথিবীতে দেব-দেবীর আগমন ঘটে, তারা এই যানবাহনে চড়ে আসেন। এমতাবস্থায় দেবতাদের এই বাহন দেখা শুভ নাকি অশুভ বিবেচিত হবে তা নিয়ে বিভ্রান্তি রয়েছে অনেকের মনে। আসুন আজ এই রহস্য উদঘাটন করি। 


মহিষ যমরাজের বাহন


শাস্ত্র ও পুরাণে যমরাজকে মৃত্যুর দেবতা বলা হয়েছে। এটা বিশ্বাস করা হয় যে কেউ মারা গেলে, যমরাজ তার প্রাণ নিতে একটি মহিষে চড়ে আসেন । এমন অবস্থায় স্বপ্নে মহিষ দেখতে পেলে তা কোনো অকল্যাণের সূচক বলে মনে করা হয়। এই জাতীয় স্বপ্ন দেখা কোনও নির্দিষ্ট পরিচিত ব্যক্তির মৃত্যুর ইঙ্গিত দেয়। তাই এমন স্বপ্ন দেখা শুভ বলে মনে করা হয় না।


কাক চড়ে শনি দেব 


শনিদেবকে বলা হয় ন্যায়ের দেবতা। তিনি মানুষকে তাদের কর্মের ভিত্তিতে যথাযথ ফল দেন। তার বাহন কাক বলে মনে করা হয়। কাক পূর্বপুরুষদের অর্থাৎ পরিবারের প্রয়াত পূর্বপুরুষদের প্রতীক বলা হয়। কথিত আছে যে তিজ উৎসবে যদি আপনার বাড়িতে বা আশেপাশে কাক দেখানো হয় তবে তা ঘরে সুখ নিয়ে আসে। অন্যদিকে, কাক যদি সারাক্ষণ বাড়ির ভিতরে বা আশেপাশে ঘোরাফেরা করে, তবে এটি পরিবারে আর্থিক সংকট এবং কারও গুরুতর অসুস্থতার লক্ষণ হিসাবে বিবেচিত হয়। 


গরুড়, ভগবান বিষ্ণুর বাহন


গরুড় হলেন জগৎস্বামী ভগবান বিষ্ণুর বাহন যিনি তিন জগৎ পরিচালনা করেন। তার তীক্ষ্ণ দৃষ্টিশক্তি, শক্ত খপ্পর এবং প্রচন্ড শিকার করার ক্ষমতার কারণে তাকে পক্ষীরাজও বলা হয়। তবে ভগবান বিষ্ণুর বাহন হওয়া সত্ত্বেও স্বপ্নে গরুড় দেখা অশুভ বলে মনে করা হয়। কথিত আছে যে গরুড়ের স্বপ্ন দেখা বাড়িতে দারিদ্র্যের লক্ষণ বলে মনে করা হয়। গরুড় যেহেতু আমিষভোজী প্রাণী তাই যেখানেই বসে সেখানেই মাংসের টুকরো ফেলে রাখে। তাই বাড়ির ছাদে গরুড় বসানোও ঠিক নয়। 


বি.দ্র: এখানে দেওয়া তথ্য প্রচলিত বিশ্বাস ও মান্যতার ওপর ভিত্তি করে লেখা। প্রেসকার্ড নিউজ এটি নিশ্চিত করে না।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad