সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রেমের ফাঁদ, বিয়ের পর লাঞ্ছনার শিকার যুবতী - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 27 December 2022

সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রেমের ফাঁদ, বিয়ের পর লাঞ্ছনার শিকার যুবতী



সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রেমের ফাঁদে পড়া বাংলার এক হিন্দু যুবতীর বিয়ে হল সমষ্টিপুরের তাজপুরের এক মুসলিম যুবকের সঙ্গে।  তিনিও দেড় বছর ধরে এখানে বসবাস করছিলেন।  যখন তিনি জানতে পারলেন যে তার স্বামী বিবাহিত এবং সন্তান রয়েছে, তখন সে তার বিরোধিতা শুরু করে।  এর পর তাকে লাঞ্ছিত করা হয়।  এতে আহত হয়ে মেয়েটি তার মাকে ফোন করে সব তথ্য জানায়।  মেয়ের খোঁজে দুদিন আগে সমষ্টিপুরে এসে পুলিশের সহায়তায় তাকে উদ্ধার করেন মা।  এই ঘটনার বিষয়ে 24 ডিসেম্বর কলকাতার ব্যারাকপুরের অধীনে টিটাগড় থানায় একটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছিল।


 

 জানা গেছে, বাংলার বাসিন্দা বিনীতা দেড় বছর আগে ফেসবুকের মাধ্যমে তাজপুরের এক ছেলের প্রেমে পড়েন।  ধীরে ধীরে প্রেমে পড়ল।  এরপর তাদের দুজনের বিয়েও হয়ে যায় এবং তারা দুজনেই তাজপুরে তাদের বাড়িতে থাকতে শুরু করে।  মেয়েটি জানায়, এখানে এসে আমরা জানতে পারি সে ইতিমধ্যে বিবাহিত এবং তার দুটি সন্তান রয়েছে।  মেয়েটি জানায়, আমরা এর বিরোধিতা শুরু করলে পুরো পরিবার আমার সঙ্গে মারামারি শুরু করে এবং আমার বাম হাত ভেঙে দেয় এবং মোবাইলও ভেঙে দেয়।


 

 মেয়েটি আরও জানায় যে একদিন আমি রাকেশের মোবাইল থেকে আমার মাকে বিষয়টি জানাই, তখন আমার মা এবং কাকি তাকে খুঁজতে এখানে পৌঁছায়।  এরপর তাজপুর পুলিশ আমাকে দলসিংসরাই নিয়ে যায়।  অন্যদিকে, দলসিংসরাইয়ে ওই মেয়েটি জানায়, আমার প্রেমিক আমাকে তার নাম রাকেশ সিং বলেছে।  তাজপুরে এসে জানতে পারলাম সে মুসলমান।  আমি বিয়ে করতে অস্বীকার করলে আমাকে মারধর করা হয় এবং আমার মোবাইলও ভেঙে দেওয়া হয়।  প্রায় দেড় বছর পর মাকে তার মোবাইলের মাধ্যমে বিষয়টি জানাই।




মেয়েটি আরও জানায়, তাজপুরে পরিবারের লোকজনের চাপে পুলিশ জোর করে অভিযোগপত্র দেয়।  এরপর বন্ড পেপারে সই করে আমাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।  ভুক্তভোগী যুবতী সংবাদমাধ্যমকে জানান, কয়েক মাস আগে তাজপুরের রাকেশ নামের এক যুবকের সঙ্গে ফেসবুকে কথা বলতে গিয়ে প্রেমে পড়েছিল।  তাকে বিয়ে করতে ২০২২ সালের মে মাসে তাজপুরে আসেন।  আসার পর জানতে পারলাম, যে যুবককে আমি রাকেশ ভেবে ভালোবাসতাম।  এরপর আমি বাড়ি ফিরে যাওয়ার জন্য জোর করলেও সে আমাকে মারধর করতে থাকে।


 

 বিশ্ব হিন্দু পরিষদের জেলা মন্ত্রী অজয় ​​কুমার যাদব, যিনি দলসিংসরাই পৌঁছান, তিনি জানান যে বাংলা থেকে আমাদের সংগঠনের সহকর্মী সুমিত মুখোপাধ্যায় বলেছিলেন যে আমাদের এক আত্মীয়কে জোর করে বাড়িতে আটকে রেখে ধর্মান্তরিত করা হয়েছিল।  সেই তথ্যের ভিত্তিতে আমরা তাজপুর থানায় গিয়ে স্টেশন ইনচার্জের কাছ থেকে তথ্য নিয়েছি।  সেখানে বলা হয়, তরুণীকে মহিলা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।  এর পর আমরা আমাদের সঙ্গীকে নিয়ে মহিলা থানায় যাই।  যেখানে আমাদের ওই মেয়ের সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হয়নি।  এরপর দলসিংসরাইয়ে এসে খবর পেয়ে ওই মেয়ে ও তার কাকি ও মাকে দলসিংসরাই রেলস্টেশন থেকে নিরাপদে নিয়ে আমার সঙ্গে নিয়ে যাচ্ছি।  তাকে বাংলায় পাঠানো হবে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad