ঝাড়খন্ডের সেরা পিকনিক স্পট! - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, 28 December 2022

ঝাড়খন্ডের সেরা পিকনিক স্পট!

 






নতুন বছর ২০২৩ শুরু হতে চলেছে। নতুন বছর সবসময় নতুন আশার আলো নিয়ে আসে। নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত গোটা বিশ্ব।  এখানে দেখুন কোথায় এবং কিভাবে নববর্ষ উদযাপন করবেন এবং ঝাড়খন্ডের যুবকদের প্রিয় পিকনিক স্পটগুলি কোনগুলি।

১.নেতারহাট:
নেতারহাট হল ঝাড়খণ্ডের লাতেহার জেলায় অবস্থিত একটি পর্যটন স্থান যা ছোটনাগপুরের রানী নামেও পরিচিত। নেতারহাট প্রধানত তার সেরা সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্তের দৃশ্যের জন্য পরিচিত।  নেতারহাট হল ছোটনাগপুর মালভূমির সর্বোচ্চ বিন্দু।  নেতারহাটে, আপনি উচ্চতায় দাঁড়িয়ে দূর-দূরান্তে ছড়িয়ে থাকা সবুজ দেখতে পারেন এবং তাজা বাতাস উপভোগ করতে পারেন।  তরুণদের প্রিয় হওয়ার পাশাপাশি এটি সেরা পারিবারিক পিকনিক স্পটও।

হুন্দ্রু জলপ্রপাত :
ঝাড়খণ্ডের সবচেয়ে বিখ্যাত জলপ্রপাত হল হুন্দ্রু জলপ্রপাত।  এই সুন্দর জলপ্রপাতটি রাঁচি পুরলিয়া রোডে অবস্থিত।  এটি রাঁচির অন্যতম জনপ্রিয় স্থান।  হুন্দ্রু জলপ্রপাতের গোড়ায় একটি পুল রয়েছে, যা স্নানের স্থান এবং পিকনিক স্পট হিসেবে জনপ্রিয়।  এত উচ্চতা থেকে জল পড়ার অপূর্ব দৃশ্য অনেকদিন ধরেই মানুষের মন জয় করে আসছে।

সীতা ফল:
সীতা ফলন রাজধানী রাঁচি থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।  পাহাড় ও বনে ঘেরা এই পতনটি বিখ্যাত পর্যটন স্থানগুলির মধ্যে একটি।  এটা বিশ্বাস করা হয় যে ভগবান শ্রী রাম তাদের বনবাসের সময়  মা সীতা এবং ভাই লক্ষ্মণের সঙ্গে কয়েকদিন এখানে অবস্থান করেছিলেন।

ব্লু পন্ড( নীল পুকুর) :
ব্লু পন্ড রাঁচি জেলা থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে বালাসিরিং নামক স্থানে অবস্থিত।  এটি মানুষের তৈরি পাথরের একটি ছোট খনি যার জল খুব নীল এবং তাই এটি নীল পুকুর নামে বিখ্যাত।  এর স্বতন্ত্রতা এটিকে আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত করেছে।  প্রতি বছর এখানে পর্যটকদের ভিড় দেখা যায়। 

জোনা ফল:
জোনা ফল রাঁচি থেকে প্রায় ৪৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।  এটি গৌতমধারা ফল নামেও পরিচিত।  পরিবারের সঙ্গে পিকনিক করার জন্য এটি একটি উপযুক্ত জায়গা।  এখানে আপনি আপনার প্রিয়জনদের সঙ্গে একসঙ্গে খাবার রান্না করতে পারেন এবং উচ্চতা থেকে ঝরে পড়া জলপ্রপাত উপভোগ করে আপনার পিকনিককে রোমাঞ্চকর করে তুলতে পারেন।

দশম পতন:
দশম পতন রাঁচি থেকে ৪০ কিমি দূরে রাঁচি-টাটা রোডে তাইমারা গ্রামের কাছে।  এখানে কাঞ্চি নদী ১৪৪ ফুট উচ্চতা থেকে পড়ে।  এই জলপ্রপাতটি সুন্দর প্রাকৃতিক দৃশ্যে ঘেরা।  এখানে আগত পর্যটকদের জলপ্রপাতের স্রোতে স্নান না করার বা স্নানের সময় বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করার জন্য কঠোরভাবে নির্দেশ দেওয়া হয়।  এখান থেকে অনেকবার দুর্ঘটনার খবর এসেছে, তাই এখানে পিকনিক করার সময় সতর্ক থাকার জন্য অনুরোধ করা হল।

  পাত্রাতু উপত্যকা:
ঝাড়খণ্ডের রামগড় জেলার জঙ্গলে অবস্থিত এই সুন্দর পাত্রাতু উপত্যকা একটি পর্যটন আকর্ষণ কেন্দ্র।  ঝাড়খণ্ডের রামগড় জেলায় অবস্থিত পাত্রতু একটি সুন্দর উপত্যকা, যা তার মনোমুগ্ধকর পরিবেশ, পাহাড়ি সৌন্দর্য এবং বাঁধের জন্য পরিচিত।  সপ্তাহান্তে এবং নববর্ষে বেড়াতে যাওয়ার জন্য এটি একটি নিখুঁত গন্তব্য, যেখানে আপনি আপনার পরিবার বা বন্ধুদের সঙ্গে আসতে পারেন।  এই হিল স্টেশনটি সবুজ বনে ঘেরা, যাকে বাঁকানো রাস্তা দিয়ে আকর্ষণীয় করে তোলা হয়েছে।

ধুরভা ড্যাম:
রাজধানী রাঁচিতে অবস্থিত ধুরভা ড্যাম বরাবরই একটি ভালো পিকনিক স্পট হিসেবে বিবেচিত হয়েছে।  প্রতি বছর নববর্ষে এখানে মানুষের সমাগম দেখা যায়।  এখানকার শান্ত পরিবেশ এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এই জায়গাটিকে এতটাই বিখ্যাত করে তুলেছে যে মানুষ, বিশেষ করে যুবকরা এখানে আসা থেকে নিজেদের আটকাতে পারে না। 

গেটালসুদ ড্যাম :
গেটালসুদ ড্যাম হল ওরমানঝি, রাঁচিতে অবস্থিত একটি সুন্দর বাঁধ যা যুবকদের প্রিয় পিকনিক স্পট।  এটি রাঁচি থেকে প্রায় ৩৫ কিমি এবং রামগড় থেকে ৩০ কিমি দূরে অবস্থিত।  রাঁচির মানুষের জলের চাহিদাও এখান থেকেই পূরণ হয়।  এটি রাঁচি এবং রামগড়ের মানুষের জন্য একটি দুর্দান্ত পিকনিক স্পট।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad