জামাইয়ের গ্রাম! এই গ্রামে মেয়েরা বিয়ের পর শ্বশুর বাড়ি যায় না - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, 28 December 2022

জামাইয়ের গ্রাম! এই গ্রামে মেয়েরা বিয়ের পর শ্বশুর বাড়ি যায় না

 








সাধারণত, মেয়েরা বিয়ের পর তাদের শ্বশুর বাড়িতে যায় এবং সেখানে তাদের বাকি জীবন কাটায়।  কিন্তু আমাদের দেশে একটা কোণ আছে যেখানে মেয়েরা বিয়ের পর শ্বশুর বাড়িতে যায় না, তবে জামাই থাকে মেয়ের বাড়িতে।  উত্তরপ্রদেশের কৌশাম্বিতে একটি গ্রাম রয়েছে হিঙ্গুলপুর, এই গ্রামটি জামাইদের গ্রাম হিসেবে নিজস্ব পরিচয় নিয়েছে। এটি দেশের এমন একটি গ্রাম যা জামাইয়ের গ্রাম নামে পরিচিত।

কেন এই গ্রামের নাম এরকম  হল আসুন সে সম্পর্কে জানা যাক-

  কন্যাসন্তান বাঁচাতে গৃহীত অভিনব পদ্ধতি বাস্তবে কয়েক দশক আগে গ্রামের প্রবীণরা সিদ্ধান্ত নেন মেয়েকে বিয়ে করার পর তার পিতার বাড়িতে রাখার।  ইউপিতে ক্রমবর্ধমান নারী ভ্রুণ হত্যা ও যৌতুক হত্যার অপরাধ রুখতে এই অনন্য পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।  কন্যা ভ্রূণ হত্যা ও যৌতুকের কারণে সবচেয়ে এগিয়ে থাকা ইউপির এই গ্রামটি তার কন্যাদের বাঁচাতে এক অনন্য পদ্ধতি অবলম্বন করেছে।

হিঙ্গুলপুর গ্রামের মেয়েরা বিয়ের যোগ্য হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাদের সম্পর্কের কথা বলার সময় এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ শর্ত। কর্মসংস্থানে যাতে কোনো সমস্যা না হয় সেজন্য গ্রামের লোকজন মিলে গ্রামে জামাইদের বসবাসের ব্যবস্থা করে দেয়।  কানপুর, ফতেপুর, প্রতাপগড়, এলাহাবাদ এবং বান্দার মতো আশেপাশের জেলার জামাইরা হিঙ্গুলপুর গ্রামে বসবাস করছেন।  জামাইদের বহু প্রজন্ম গ্রামে বসতি স্থাপন করেছে ১৮ থেকে ৭০ বছর বয়সী বিবাহিত নারীরা তাদের স্বামীর সঙ্গে গ্রামে বসতি স্থাপন করেছে। এ কারণেই বহু প্রজন্মের জামাই এখানে একই বাড়িতে বসবাস করছেন।  সংখ্যালঘুরাও গ্রামে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠীর এই পদ্ধতি গ্রহণ করেছে।  মেয়েদের নিরাপদে রাখতে গ্রামের লোকেরা সিদ্ধান্ত নেয় মেয়েদের ঘরে রাখার।

এই গ্রামের একটি বিশেষত্ব হল এখানকার মেয়েদের এমন গুণ শেখানো হয় যে তারা কারো ওপর নির্ভরশীল হয় না।  জামাই শ্বশুর বাড়িতে থাকার কারণে মেয়েটি অবিবাহিত থাকে এবং তারপরে সে আর্থিক সমস্যার সম্মুখীন হয়, এ থেকে বাঁচতে মেয়েদের শিক্ষার ওপর বিশেষ জোর দেওয়া হয়।  পড়ালেখার পর তাদেরকে সেলাই ও বুননের মতো কিছু দক্ষতাও শেখানো হয় যাতে তারা আর্থিকভাবে কারো ওপর নির্ভরশীল না হয়।  মধ্যপ্রদেশে অবস্থিত হিঙ্গুলপুর আমাদের দেশের একমাত্র গ্রাম নয়।  মধ্যপ্রদেশের নরসিংহপুর জেলা সদরের কাছে এমনই একটি গ্রাম রয়েছে, যেখানে জামাইরা এসে বসবাস করে। এখানকার বিটলি গ্রামটি জামাইদের গ্রাম হিসেবে বিখ্যাত। ভারতে বিয়েকে অনেক বড় বন্ধন বলে মনে করা হয়। এমতাবস্থায় কন্যাসন্তানদের নিরাপদে রাখতে এমন পদক্ষেপ নেওয়াটাই বড় কথা।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad