আবাসে রেশন ডিলার থেকে সিভিক! তদারকিতে এসে চোখ কপালে কেন্দ্রীয় দলের - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Friday, 20 January 2023

আবাসে রেশন ডিলার থেকে সিভিক! তদারকিতে এসে চোখ কপালে কেন্দ্রীয় দলের


মালদা: আবাস যোজনায় এবার উঠে এল রেশন ডিলার থেকে সিভিক ভলেন্টিয়ারের নাম। তাদের ঝাঁ চকচকে বাড়ি দেখে হতচকিত কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল। কথা বলেন আবাস যোজনায় সুবিধা পাওয়া ওইসব পরিবারের সঙ্গে। যদিও উপভোক্তাদের দাবী, তাদের এই বাড়ি তৈরি আবাস যোজনা পাওয়া টাকায় নয়। বৃহস্পতিবার এমনই ঘটনা ঘটেছে কালিয়াচক ৩ ব্লকের চরিঅনন্তপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের কামারপাড়া গ্রামে।  


এদিকে আবাস যোজনার তালিকায় সিভিক ভলেন্টিয়ার অভিজিৎ পান্ডের পরিবারের সাথে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল কথা বলেন। যদিও জেলাশাসকের দাবী, ডিসেম্বর মাসেই তার নাম বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। 


উল্লেখ্য, তৃতীয় দিনে কালিয়াচক ৩ ব্লকে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধী দল আবাস যোজনার প্রকল্পের বিষয় নিয়ে তদারকিতে যান। এদিন কালিয়াচক ৩ ব্লক প্রশাসনিক অফিসে বেশ কিছুক্ষণ বৈঠক করেন কেন্দ্রীয় দলের অফিসারেরা। এরপর গ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। কেন্দ্রীয় দুই সদস্যর প্রতিনিধি  দলের সঙ্গে ছিলেন অতিরিক্ত জেলাশাসক (জেলা পরিষদ) জামিল ফতেমা জেবা।  


ঝাঁ চকচকে পেল্লায় বাড়ি। পেশায় রেশন ডিলার। কালিয়াচক ৩ নম্বর ব্লকের চরিঅনন্তপুর গ্রামে যদু নন্দন দাস নামে ওই রেশন ডিলারের নাম আবাস যোজনার তালিকায়। তবে ওই রেশন ডিলারের দাবী, তিনি কখনও আবাস যোজনার জন্য আবেদন করেন নি। 


তবে জেলাশাসক নীতিন সিঙ্হানিয়া জানিয়েছেন, বাড়ি পাওয়ার যোগ্য নয় এমন ১১ জনের নাম বাতিল করা হয়েছে গত বছর ডিসেম্বর মাসে। 


এদিন দুপুরে হরিশ্চন্দ্রপুর ২ ব্লকের ভালুকা গ্রাম পঞ্চায়েতের মহালদার পাড়ায় যান কেন্দ্রের দুই প্রতিনিধির দল। সেখানে গিয়ে নজরে আসে, যাদের বাড়ি আছে তারাই বাড়ি পেয়েছে। এই এলাকারই বাসিন্দা কৈলাস চৌধুরী নামে এক তৃণমূল নেতা যার পাকা বাড়ি রয়েছে, তার নামেও ঘর এসে গিয়েছে। যদিও ওই প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের সদস্যরা কোনও প্রতিক্রিয়া দেন নি। 


জেলাশাসক নীতিন সিংহানিয়া জানিয়েছেন, ভালুকা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় ৫৫ জনের নাম বাদ দেওয়া হয়েছে তালিকা থেকে। 


এদিন বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েতের যাওয়ার পাশাপাশি জেলাশাসকের সাথে বৈঠক করেন এই দুই প্রতিনিধি দল। 


বিজেপির মালদা জেলার উত্তর মালদা সাংগঠনিক জেলার সভাপতি উজ্জ্বল দত্ত বলেন, 'আবাস যোজনা নিয়ে এই প্রতিনিধি দল সামান্য কিছু জায়গায় গিয়েছে। তাতেই তারা এত দুর্নীতি দেখতে পেয়েছে। গোটা জেলা ঘুরলে কি অবস্থা হতো!' 


 তৃণমূলের রাজ্য কমিটি সাধারণ সম্পাদক কৃষ্ণেন্দু  চৌধুরী বলেন, 'একাংশ আধিকারিক এবং কিছু ব্যক্তি সরকারকে মেলাইন করার জন্য এই ধরনের কাজ করেছে। সরকারের উচিৎ এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া।'

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad