মাথার খুলি বিচ্ছিন্ন-পাঁজর চূর্ণ-শরীরে ৪০টি ক্ষত, নির্মমভাবে খুন অঞ্জলি - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, 4 January 2023

মাথার খুলি বিচ্ছিন্ন-পাঁজর চূর্ণ-শরীরে ৪০টি ক্ষত, নির্মমভাবে খুন অঞ্জলি



দিল্লীর কানঝালওয়ায় 20 বছর বয়সী অঞ্জলি কতটা বর্বরতার শিকার তা মৃত যুবতীর পোস্টমর্টেম রিপোর্ট থেকে অনুমান করা যেতে পারে।  মৌলানা আজাদ মেডিক্যাল কলেজে অঞ্জলির ময়নাতদন্ত করে তিন চিকিৎসকের একটি প্যানেল।  ময়নাতদন্তের রিপোর্টে জানা গেছে, অঞ্জলির শরীরে একটি বা দুটি নয়, 40টি ক্ষত রয়েছে।  নিহতের মাথা বিচ্ছিন্ন করে এমনভাবে টেনে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল যেন শরীরের অভ্যন্তরীণ অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দেখা যায়।  তার শরীরে মোট 40টি আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।  তবে ময়নাতদন্ত রিপোর্টে তার ওপর যৌন নির্যাতনের কোনও চিহ্ন পাওয়া যায়নি।  মেয়েটিকে দিল্লীর রাস্তায় 40 কিলোমিটার টেনে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।



 এই রিপোর্টে বলা হয়েছে, মাথা, মেরুদণ্ড ও নিম্নাঙ্গে আঘাতের কারণে রক্তক্ষরণ ও আঘাতজনিত কারণে মেয়েটির মৃত্যু হয়েছে।  ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টের বরাত দিয়ে পুলিশ মঙ্গলবার এ তথ্য জানায়।  প্রাথমিক রিপোর্টে মাথা, মেরুদণ্ড, বাম উরুর হাড় ও দুই পায়ে গুরুতর আঘাতের ফলে রক্তক্ষরণ ও ট্রমা হয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।  সমস্ত আঘাত সম্ভবত দুর্ঘটনা এবং গাড়ি থেকে টেনে নেওয়ার কারণে হয়েছে।



 গাড়ির নিচে আটকা পড়া অঞ্জলিকে এমনভাবে টেনে নিয়ে যায় যে তার মাথার খুলি উন্মোচিত হয়।  সংবাদমাধ্যমের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পুলিশকে চিকিৎসকদের দেওয়া মেয়েটির এমএসিএম রিপোর্টে মস্তিষ্কের উপাদান হারিয়ে যাওয়ার কথা বলা হয়েছে।  অঞ্জলির পাঁজরগুলি পিছনের দিক থেকে বেরিয়ে আসছে এবং এই পাঁজরগুলি খারাপভাবে চূর্ণ হয়ে গেছে।  অঞ্জলির কোমরের মেরুদণ্ডে একটি ফ্র্যাকচার পাওয়া গেছে।  তার সারা শরীর কাদা আর ময়লা দিয়ে ঢাকা ছিল।  সূত্রের বরাত দিয়ে মিডিয়া রিপোর্টে বলা হচ্ছে, মেডিক্যাল টিম দেখেছে যে তার দুটি ফুসফুসই স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে।



অঞ্জলির মৃত্যুর পর শোক ও ক্ষোভের মধ্যে মঙ্গলবার তাকে দাহ করা হয়।  'অঞ্জলিকে বিচার দাও' লেখা ব্যানার নিয়ে শ্মশানে পৌঁছেছিল মানুষ।  গত 1 জানুয়ারি অঞ্জলির সঙ্গে নৃশংসতার ঘটনায় 5 জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।  তাদের বিরুদ্ধে খুন নয় অপরাধমূলক খুনসহ বিভিন্ন ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে।  এখন সবার চোখ এ ব্যাপারে পুলিশের তদন্তের দিকে।  মানুষ আশা করছে যারা অঞ্জলির প্রতি নিষ্ঠুরতা করেছে তাদের আইন অনুযায়ী শাস্তি হবে। দিল্লী পুলিশ ইতিমধ্যেই বলেছে, অভিযুক্তদের কঠোরতম শাস্তি দেওয়া হবে।



 মঙ্গলবার অঞ্জলির বান্ধবী নিধি সাংবাদিকদের বলেন, 'বাদামী রঙের ব্যালেনো স্কুটিটিকে উল্টো দিক থেকে ধাক্কা দেয়।  আমি পাশে পড়ে গেলে সে গাড়ির সামনে পড়ে গেল।  তারা তার ওপর দিয়ে গাড়ি চালিয়ে দেয়।  তারা জানত সে গাড়ির নিচে ছিল, কিন্তু তারা থামেনি।  সে কাঁদছিল। তারা পরিকল্পিতভাবে তাকে খুন করেছে।'  বান্ধবী বলেন, 'আমি ভয় পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে গিয়েছিলাম এবং কী করব বুঝতে পারছিলাম না।' অঞ্জলির বান্ধবী জানান, শনিবার রাতে সে তার বন্ধুদের সঙ্গে দেখা করতে একটি হোটেলে গিয়েছিল।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad