জানেন কি প্রিয় চিপস-বার্গার-ই কেড়ে নিতে প্রাণ? - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Thursday, 26 January 2023

জানেন কি প্রিয় চিপস-বার্গার-ই কেড়ে নিতে প্রাণ?

 


 এক প্যাকেট চিপস.. এক প্যাকেট বিস্কুট.. অথবা ভুজিয়া মাত্র এক প্যাকেট। আপনি নিশ্চয়ই ভাবছেন যে আপনি কী খেয়েছেন... কিন্তু এই প্যাকেটেই মৃত্যুর আশঙ্কা রয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সম্প্রতি একটি স্ট্যাটাস রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। এই প্রতিবেদনটি ট্রান্স ফ্যাট সম্পর্কে। এই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ট্রান্স ফ্যাট খাওয়ার কারণে বছরে ৫ লাখ মানুষ অকালে মারা যাচ্ছে। ট্রান্স ফ্যাট কি? এটি বিশদভাবে বোঝার আগে, সহজ ভাষায় বুঝে নিন যে ট্রান্স ফ্যাট আপনার প্রিয় চিপস, বার্গার, কেক বা বিস্কুটে এমনকি স্ন্যাকসের প্যাকেটেও থাকতে পারে। প্রতিটি প্যাকেটজাত জিনিস যার বয়স কয়েক দিন থেকে কয়েক মাস.. বুঝুন এতে ট্রান্স ফ্যাট থাকবে।


যখন কোনো তেলকে শিল্প প্রক্রিয়ার মাধ্যমে হিমায়িত করা হয় অর্থাৎ হাইড্রোজেনেশনের মাধ্যমে এবং তা হিমায়িত চর্বিতে রূপান্তরিত হয়, তখন তা ট্রান্স ফ্যাট বা ট্রান্স ফ্যাটি অ্যাসিডের রূপ নেয়। উদাহরণস্বরূপ, সবজি থেকে প্রাপ্ত তেল যদি রাসায়নিক প্রক্রিয়াকরণের মাধ্যমে সংরক্ষণ করা হয় এবং এমনভাবে তৈরি করা হয় যাতে তা ঘরের তাপমাত্রায় হিমায়িত থাকে তবে তাকে ট্রান্সফ্যাট বলা হবে। 


বনস্পতি ঘি এক ধরনের ট্রান্স ফ্যাট। কাঁচা ঘানির সাথে সরিষার তেল ট্রান্স ফ্যাট নয়, বনস্পতি ঘি বা মেয়োনিজ ট্রান্স ফ্যাট। দেশি ঘি ও মাখন ট্রান্স ফ্যাট নয় কিন্তু পরিশোধিত তেল যা তিনবারের বেশি ভাজা হলে তা ট্রান্স ফ্যাট হয়ে যায়। বিস্কুট হোক বা স্ন্যাকস, এগুলোর মধ্যে ট্রান্স ফ্যাট ব্যবহার করা হয় যাতে এগুলো দীর্ঘ সময় জমাট বেঁধে থাকে এবং ট্রান্স ফ্যাট ব্যবহার করে এগুলো দীর্ঘদিন ধরে বিক্রি ও খাওয়া যায়। 


ট্রান্স ফ্যাট শরীরে খারাপ কোলেস্টেরল বাড়ায়। সবচেয়ে খারাপ ব্যাপার হল অতিরিক্ত পরিমাণে ট্রান্স ফ্যাট খাওয়ার ফলে শরীরের ভালো কোলেস্টেরল অর্থাৎ প্রয়োজনীয় ফ্যাটও খারাপ কোলেস্টেরলে রূপান্তরিত হতে শুরু করে। ভারতীয়দের হৃদরোগ দিতে ট্রান্স ফ্যাটের বড় ভূমিকা রয়েছে। কারণ আপনি যদি বাজার থেকে অনেকবার তেলে ভাজা সমোসা খেয়ে থাকেন বা চিপস, বার্গার বা পিজ্জার প্যাকেট খেয়ে থাকেন তবে এসবের মাধ্যমে আপনার কাছে পৌঁছে গেছে ট্রান্স ফ্যাট।   


বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী, ট্রান্স ফ্যাট বিশ্বের ৫ বিলিয়ন মানুষের জীবন কমিয়েছে। তারা হৃদরোগের ঝুঁকি নিয়ে জীবনযাপন করছেন। ২০১৮ সালে, খাবারে ট্রান্স ফ্যাট কমাতে এবং ২০২৩ সালের মধ্যে খাবার থেকে ট্রান্স ফ্যাট সম্পূর্ণরূপে নির্মূল করার একটি প্রচেষ্টা করা হয়েছিল। তবে এখন এ বিষয়ে ৪৩টি দেশ এগিয়ে গেছে। ২০২২ সালে, ভারতও এই তালিকায় যোগ দেয়। 


ভারত ছাড়াও বাংলাদেশ, আর্জেন্টিনা ও শ্রীলঙ্কাও গত বছরে উল্লেখযোগ্যভাবে ট্রান্স ফ্যাটের পরিমাণ কমিয়েছে। ট্রান্স ফ্যাট সব দেশে নিষিদ্ধ হলেও পুরোপুরি নিষিদ্ধ করা যায়নি। পাকিস্তান, নেপাল, কোরিয়া, ভুটান, ইরান, ইকুয়েডর, মিশর, অস্ট্রেলিয়া, আজারবাইজানে এখনও এটি নিষিদ্ধ করা হয়নি। WHO মান অনুযায়ী, ট্রান্স ফ্যাটের পরিমাণ প্রতি ১০০ গ্রামে ২ গ্রামের বেশি হওয়া উচিৎ নয়। প্যাকেজ করা খনিগুলিতে উচ্চ হাইড্রোজেন সামগ্রী সহ পরিশোধিত তেল নিষিদ্ধ করা উচিৎ। ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অথরিটি অফ ইন্ডিয়া ২০২২ সালের জানুয়ারিতে এই নিয়মটি কার্যকর করেছে। কিন্তু বাজারে বিক্রি হওয়া পণ্য কতটা এসব মান মেনে চলে, তা বলা যাবে না।  


চিকিৎসকদের মতে, আমাদের শরীরে ট্রান্স ফ্যাটের কোনো প্রয়োজন নেই। তাই এটাকে পুরোপুরি নিষিদ্ধ করলেও কোনো পার্থক্য হবে না। তবে তা ছাড়া প্যাকেটজাত জিনিসের বাজার পুরোপুরি বদলে ফেলতে হবে। মাংস এবং দুগ্ধজাত দ্রব্যে কিছু পরিমাণ প্রাকৃতিক ট্রান্স ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে তবে সেগুলি নগণ্য। এক টুকরো পেস্ট্রি বা পিজ্জা বেসে কত ট্রান্স ফ্যাট আছে তা আপনি গণনা করতে পারবেন না।     


আরডিএ অর্থাৎ প্রস্তাবিত খাদ্যতালিকাগত ভাতা আমাদের শরীরের পুষ্টির প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী নির্ধারণ করা হয়। আরডিএ অনুযায়ী, একজন সুস্থ মানুষের জন্য প্রতিদিন লবণের পরিমাণ ৫ গ্রাম, চর্বি ৬০ গ্রাম, ট্রান্স ফ্যাট ২.২ গ্রাম এবং কার্বোহাইড্রেট ৩০০ গ্রাম নির্ধারণ করা হয়েছে। এই পরিমাণটি একজন সুস্থ প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির দৈনিক ২০০০ ক্যালরির প্রয়োজন অনুসারে নেওয়া হয়েছে। এর চেয়ে শিশুদের চাহিদা খুবই কম।  


২০১৯ সালে, CSE ট্রান্স ফ্যাটের উপর একটি বাস্তবতা পরীক্ষা করেছিল। যেখানে অনেক বিখ্যাত ব্র্যান্ডের চিপস এবং ভুজিয়ার প্যাকেটে ট্রান্স ফ্যাট সনাক্ত করতে ল্যাবে বিশ্লেষণ করা হয়েছিল। যেখানে দেখা গেছে যে আপনি যদি ৩০ গ্রাম চিপসের প্যাকেট খান, তাহলে বুঝবেন আপনি সারাদিনের মোট ফ্যাটের প্রায় অর্ধেক খেয়ে ফেলেছেন এবং তাও ট্রান্স ফ্যাট আকারে। বাদাম ক্র্যাকার, বেকড চিপস এবং ভুজিয়ায় অতিরিক্ত চর্বি পাওয়া গেছে। এই জরিপে আরও জানা গেছে যে অনেক প্যাকেটের লেবেলে আসলে কী আছে তার সঠিক তথ্য দিচ্ছে না।  


আপনি যদি আপনার জীবন থেকে এই খারাপ চর্বি দূর করতে চান তবে আপনি কী খেতে পারবেন না এবং কীভাবে আপনার স্বাস্থ্যের ক্ষতি কমাতে পারেন। এ জন্য আমরা বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলে বাজার জরিপ করেছি। এর থেকে আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনি দিনের বেলা খাওয়ার ক্ষেত্রে কী ভুল করেছেন, যা আপনার আগামীকাল থেকে করা উচিৎ নয়।


ঘরে তৈরি মাখন, খাঁটি দেশি ঘি বা ভেজালহীন সরিষার তেল হল ট্রান্স ফ্যাটবিহীন তেল। কিন্তু হিমায়িত বনস্পতি ঘি, চিজ স্প্রেড, মেয়োনিজ, পিৎজা, বার্গার যেমন জাঙ্ক ফুড বা ক্রিম এসবের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে ট্রান্স ফ্যাট থাকে। চিকিৎসকদের মতে, আমাদের শরীরে ট্রান্স ফ্যাটের কোনো প্রয়োজন নেই। এছাড়াও ট্রান্স ফ্যাট আমাদের শরীরে উপস্থিত ভালো চর্বিকে খারাপ চর্বিতে রূপান্তরিত করে। এগুলো ধমনীতে জমা হয়ে শুধু হার্টেরই ক্ষতি করছে না, লিভার ও মস্তিষ্কেও প্রভাব ফেলছে। বিশেষজ্ঞরা এমনকি দাবি করেন যে এই ট্রান্স ফ্যাটগুলি অনেক লাইফস্টাইল রোগ, এমনকি ক্যান্সারের পিছনে প্রধান কারণ হতে পারে, যার সরাসরি কারণ কখনও কখনও আমরা বুঝতে পারি না।  


এখন প্রশ্ন জাগে এর সমাধান কি? তাই সমাধান হল তাজা খাওয়া। তাজা রান্না করা খাবার, তাজা ফল, তাজা শাকসবজি এবং প্যাকেটজাত খাবার খাওয়া থেকে যতটা সম্ভব দূরত্ব বজায় রাখুন। প্রতিদিন অন্তত ৩০ মিনিট হাঁটুন। দাদীর যুগের আহারে ফিরে আসুন এবং দীর্ঘজীবী হন। আপনি যদি আলু টিক্কি খেতে চান তবে এটি তাজা তবে দেশি ঘি বা সরিষার তেলে তৈরি করুন। তাও মাসে একবার মাত্র।


বি.দ্র: এখানে দেওয়া তথ্য সাধারণ জ্ঞানের ওপর ভিত্তি করে লেখা- নতুন যে কোনও কিছু ট্রাই করার আগে চিকিৎসকের পরামর্শ অবশ্যই নিন।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad