"বিরোধ নয়, একসঙ্গে কাজ করব", উপাচার্য-শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বললেন রাজ্যপাল - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, 18 January 2023

"বিরোধ নয়, একসঙ্গে কাজ করব", উপাচার্য-শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বললেন রাজ্যপাল



রাজ্য রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস বলেন, মমতা সরকারের বিরোধিতা করবেন না, তবে একসঙ্গে কাজ করবেন।  শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু রাজ্যপাল এবং রাজ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের মধ্যে বৈঠককে 'ঐতিহাসিক' বলে অভিহিত করেছেন।  রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস মঙ্গলবার রাজভবন সভা থেকে বেরিয়ে ঘোষণা করেন যে এখন থেকে রাজভবন এবং শিক্ষা বিভাগের মধ্যে "সম্প্রীতি, দ্বন্দ্ব নয়"।  তাঁর নিজের কথায়, “এখন থেকে রাজভবন, নবান্ন ও বিকাশ ভবন মিলেমিশে কাজ করবে।


 রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোসের কথায় এটা স্পষ্ট যে প্রাক্তন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের যুগ শেষ, কিন্তু প্রশ্ন উঠেছে 'মুখ্যমন্ত্রীই হবেন রাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয়গুলির চ্যান্সেলর' - সরকার কি এতে পরিবর্তন আনবে? এ বার বিধানসভায় বিল আনা হয়েছে?  আচার্য কি রাজ্যপাল হবেন?  তবে এ বিষয়ে কোনও মন্তব্য করেননি শিক্ষামন্ত্রী।


 রাজ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা মঙ্গলবার রাজভবনে রাজ্যপালের সঙ্গে প্রথম বৈঠক করেন।  ঐতিহ্য অনুযায়ী শিক্ষা বিভাগকে মাঝপথে রেখে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়।  উপস্থিত ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুও।  ব্রাত্য বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশেই মঙ্গলবার বৈঠক হয়েছে।  তিনি বলেন, “মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে আমি বৈঠক করেছি।  আজকের বৈঠকের ফলাফল ফলপ্রসূ হয়েছে।  রাজভবনে আমাদের বিভাগের সঙ্গে কোনও বিরোধ থাকবে না, সমন্বয় গুরুত্বপূর্ণ এবং ফলপ্রসূ থাকবে।  তিনি এই বৈঠককে 'ঐতিহাসিক' বলেও বর্ণনা করেছেন।  তাঁর কথায়, “গভর্নর এবং সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের ঐতিহাসিক বৈঠক হয়েছে।  এই প্রথম আমি, আমার বিভাগীয় প্রধান এবং সরকার-চালিত বিশ্ববিদ্যালয়ের সমস্ত উপাচার্যরা রাজ্যপালের অনুমতি নিয়ে রাজভবনে বৈঠক করেছি।"


এরপর ব্রাত্য বলেন, রাজ্যপাল উপাচার্যদের কাছ থেকে সম্পূর্ণ তথ্য নিয়েছেন।  ব্রাত্য বলেন, “আচার্য সব বিস্তারিত জানেন।  এটি একটি খুব অনুপ্রেরণামূলক সভা ছিল। আচার্য্য প্রত্যেক উপাচার্যের সঙ্গে আলাদাভাবে কথা বলেছেন।  প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় খবর নিয়েছে।  তিনি সরকার পরিচালিত স্কুল ও বিভাগগুলোর প্রতি পূর্ণ আস্থা প্রকাশ করেন।"  মঙ্গলবারের বৈঠক ফলপ্রসূ হয়েছে বলে জানিয়েছেন রাজ্যপাল নিজেই। 


 তিনি বলেন, "আমাদের খুবই উৎসাহব্যঞ্জক, অনুপ্রেরণামূলক আলোচনা হয়েছে।  আলোচনার সারমর্ম হল নতুন প্রজন্মের জন্য শিক্ষার সকল দ্বার উন্মুক্ত করা, যাতে নতুন প্রজন্ম বাংলাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে।"  তিনি আরও বলেন, “শিক্ষা সবচেয়ে শক্তিশালী হাতিয়ার।  সমাজের পরিবর্তনের জন্য এটা প্রয়োজন।  উপাচার্যরা চমৎকার পরামর্শ দিয়েছেন।  সব কিছু ভেবে দেখা হবে।  হবে নতুন বাংলা, সেই বাংলাই দেশকে পথ দেখাবে।  যেমন গুরুদেব বলেছেন, যেখানে মন নির্ভীক, সেখানে মাথা উঁচু করে রাখা হয়।"

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad