তৃণমূল-আইএসএফ সমর্থকদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ, পাথর নিক্ষেপ-বোমাবর্ষণ - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Saturday, 21 January 2023

তৃণমূল-আইএসএফ সমর্থকদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ, পাথর নিক্ষেপ-বোমাবর্ষণ



 দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার ভাঙরে তৃণমূল কংগ্রেস ও ভারতীয় সেক্যুলার ফ্রন্টের (আইএসএফ) কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।  আইএসএফের বৈঠককে কেন্দ্র করে শুক্রবার রাত থেকেই কলকাতায় সংঘর্ষ চলছে।  এলাকায় বোমাবাজি ও পাথর ছোঁড়ার অভিযোগ উঠেছে।  সংঘর্ষে উভয় পক্ষের বহু মানুষ আহত হয়েছেন।  এলাকায় একটানা বোমা হামলার শব্দও শোনা গেছে।  পুলিশ কয়েকজনকে আটক করে তদন্ত শুরু করলেও এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে এবং উভয় পক্ষ থেকে অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগ করা হচ্ছে।



 পুলিশ সূত্রে খবর, শুক্রবার রাতে তৃণমূল ও আইএসএফ কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।  এরপর শনিবার সকালে যখন আইএসএফ সমর্থকরা কলকাতায় আসছিলেন।  তাদের গাড়িতে পাথর ছুঁড়ে মারা হয়।



 আইএসএফ নেতা আবু হুসেন মোল্লা অভিযোগ করেছেন, “আমরা ২১ জানুয়ারি দলের প্রতিষ্ঠা দিবসে দলীয় পতাকা উত্তোলন করছিলাম।  এ সময় আরবুল ইসলাম ও তার ছেলে হাকিমুল ইসলাম বাইরে থেকে লোকজন এনে আমাদের মারধর শুরু করেন।  কিন্তু পুলিশ এসে আমাদের দুজনকেই আটক করে।  তারা তাকে লাঠি দিয়ে মারধর করে।  আমরা নিজেদের রক্ষার জন্য তাদের উপর হামলা করেছি।"  ভানগড়ের তৃণমূল নেতা হাকিমুল সংঘর্ষের জন্য আইএসএফকে দায়ী করেছেন।  তিনি অভিযোগ করেন, “গতকাল আইএসএফের কয়েকজন নেতা পতাকা টাঙাচ্ছিলেন।  এ সময় তিনি আমাদের এক সমর্থকের বাড়িতে নিজ দলের পতাকা টাঙিয়ে দেন এবং আরাবুল ইসলামের নামে গালিগালাজ করেন।  আমরা প্রতিবাদ করলে তারা আমাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়।  আমাদের কর্মীদেরও বন্দুকের বোঁটা, ইট ও লাঠি দিয়ে মারধর করা হয়েছে।”



এরই মধ্যে একটি ভিডিও সামনে আসছে।  এতে দেখা যায়, আইএসএফ সমর্থকদের একটি ট্রাক দলের ব্যানার বহন করছে এবং সেই ট্রাকে লাঠি বর্ষণ করা হচ্ছে।  তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ।  আরেকটি ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, একজনকে লাঠি দিয়ে মারধর করা হচ্ছে।  যদিও তার রাজনৈতিক পরিচয় জানা যায়নি।  শনিবারও রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে ভাঙর।  শনিবার কলকাতার রানি রাসমণি রোডে আইএসএফের মিটিং রয়েছে।  আইএসএফ-এর প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে এই বৈঠক।  শনিবার, ভাঙরের বিভিন্ন অংশ থেকে দলীয় কর্মীরা, কেউ বাইকে, কেউ পিকআপ ভ্যানে, কেউ ছোট ট্রাকে করে, হাতিশালা এলাকা থেকে কলকাতার দিকে যাচ্ছিলেন, যখন তাদের উপর হামলা করা হয়েছিল বলে অভিযোগ।  এলাকার তৃণমূল কর্মীরা হাতিশালায় জড়ো হয়ে আইএসএফের গাড়ি লক্ষ্য করে ইট-পাথর ছুড়তে শুরু করে।  পরে লেদার কমপ্লেক্স থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad