অনুরাগ ঠাকুরের মানা করা সত্ত্বেও ব্রিজভূষণ সিংয়ের সংবাদ সম্মেলনে - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Friday, 20 January 2023

অনুরাগ ঠাকুরের মানা করা সত্ত্বেও ব্রিজভূষণ সিংয়ের সংবাদ সম্মেলনে



মহিলা কুস্তিগীরদের যৌন শোষণের অভিযোগের মুখোমুখি, রেসলিং ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়া (ডব্লিউএফআই) প্রধান তথা বিজেপি সাংসদ ব্রিজ ভূষণ শরণ সিং একটি সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন।  তিনি এমন সময়ে এই সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন যখন ক্রীড়ামন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর তাকে মিডিয়ায় না যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।  ক্রীড়ামন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর শুক্রবার ব্রিজ ভূষণ শরণ সিংকে তার বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়ে মিডিয়াতে যাওয়া বা কোনও বিবৃতি দেওয়া থেকে বিরত থাকতে বলেছেন, এনডিটিভির প্রতিবেদনে।  তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের বিষয়ে সংবাদমাধ্যমে বক্তব্য দিলে বিষয়টি আরও জটিল হবে।



 বৃহস্পতিবার রাতে কেন্দ্রীয় ক্রীড়া মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুরের সাথে শীর্ষ ভারতীয় কুস্তিগীরদের বৈঠক নিষ্পত্তি হয়নি।  কুস্তিগীররা অবিলম্বে ভারতের রেসলিং ফেডারেশন বিলুপ্ত করার জন্য সরকারের কাছে তাদের দাবী থেকে সরে আসতে অস্বীকার করে।  ডব্লিউএফআই সভাপতি ব্রিজ ভূষণ শরণ সিংয়ের বিরুদ্ধে কুস্তিগীরদের প্রতিবাদের দ্বিতীয় দিন বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে ম্যারাথন বৈঠক শুরু হয়।  কুস্তিগীররা সকাল ১.৪৫ টায় অনুরাগ ঠাকুরের বাড়ি ত্যাগ করে এবং বাইরে অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেনি।



 এদিকে উত্তরপ্রদেশের গোন্ডায় ব্রিজ ভূষণ শরণ সিং সাংবাদিকদের বলেন, "আমি যদি কথা বলি, সুনামি আসবে... আমি কারও সাহায্যে এখানে আসিনি, আমি জনগণের দ্বারা নির্বাচিত হয়েছি।"  এ ছাড়া আজ বিকেল ৪টায় সংবাদ সম্মেলনও ডেকেছেন তিনি।  ব্রিজভূষণ শরণ সিং ট্যুইট করে সংবাদ সম্মেলনের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।  তিনি ট্যুইটে "ষড়যন্ত্রের পিছনে কে" তা প্রকাশ করার ইঙ্গিত দিয়েছেন।



সরকারি আধিকারিকদের এবং প্রতিবাদী কুস্তিগীরদের মধ্যে আগের বৈঠক নিষ্পত্তি না হওয়ার পরে অনুরাগ ঠাকুর হিমাচল প্রদেশ থেকে দিল্লীতে পৌঁছেছিলেন।  সরকারি আধিকারিকরা জানিয়েছেন, শুক্রবার আবার ক্রীড়ামন্ত্রীর সঙ্গে কুস্তিগীররা দেখা করেন।  WFI থেকে লিখিত জবাব না পাওয়া পর্যন্ত মন্ত্রক ব্রিজ ভূষণ শরণ সিংকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করতে পারে না কারণ সরকার নিজেই কুস্তি ফেডারেশনের কাছ থেকে ব্যাখ্যা চেয়েছে।



সূত্র জানিয়েছে, সরকার চায় কুস্তিগীররা তাদের প্রতিবাদ শেষ করুক কিন্তু খেলোয়াড়রা অবিচল যে WFI আগে ভেঙে দেওয়া উচিৎ।  কুস্তিগীরদের ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র পিটিআইকে জানিয়েছে, "সরকার পরে অন্যান্য সমস্যাগুলি সমাধান করতে পারে৷  এতে আমাদের কোনও সমস্যা নেই তবে তার উচিৎ প্রথমে WFI ভাঙা।"

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad