শুধু ফল নয়, জামের পাতাও ঔষধি গুণে ভরপুর - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Sunday, 15 May 2022

শুধু ফল নয়, জামের পাতাও ঔষধি গুণে ভরপুর


গ্রীষ্মের মৌসুমে জাম সহজেই পাওয়া যায়। এটি একটি মৌসুমি ফল। অন্যদিকে, আয়ুর্বেদ অনুসারে, জামকে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সবচেয়ে কার্যকরী ওষুধ হিসাবে বিবেচনা করা হয়। এটি খেলে আপনি অ্যাসিডিটির মতো সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন এবং এটি মুখ, চোখ, দাঁত, কিডনি ইত্যাদির জন্য খুবই উপকারী। 



বেরিতে প্রচুর ভিটামিন রয়েছে। আয়রন, ক্যালসিয়াম, প্রোটিন, ফাইবার, কার্বোহাইড্রেটের মতো গুণাগুণ পাওয়া যায়। যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেও সাহায্য করে । জেনে নিন জাম খাওয়ার দারুণ উপকারিতা সম্পর্কে। 


 বেরি খাওয়ার সেরা উপকারিতা

ব্রণ পরিত্রাণ পেতে

আক্রান্ত ত্বকে জাম বা এর পাতার রস লাগালে উপকার পাওয়া যায়। এর বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ত্বক থেকে তেল আসতে বাধা দেয়। 


দাঁতের শক্তির জন্য

দাঁতের বেশির ভাগ সমস্যায় অস্থির থাকলে জাম পাতা পুড়িয়ে ছাই বানিয়ে নিন। এরপর দাঁত ও মাড়িতে লাগান। এতে আপনি সুবিধা পাবেন। এ ছাড়া পিউরিয়ার সমস্যা থাকলে ফলের রস বের করে তা দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। 


বমি

আপনি যদি বমি করে খুব কষ্ট পান তবে এর পাতা কার্যকর প্রমাণিত হতে পারে। এ জন্য আম ও জাম নরম পাতা নিয়ে ৪০০ মিলি জলে ভালো করে ফুটিয়ে নিন। এক-চতুর্থাংশ থেকে গেলে গ্যাস বন্ধ করে ঠাণ্ডা হতে দিন। এর পর খান। 


কিডনি পাথর

কিডনিতে পাথরের সমস্যা থাকলে জাম খান। এতে আপনার পাথর সহজেই গলে বেরিয়ে আসবে। 

ফল ছাড়াও এর পাতাও খাওয়া যেতে পারে, এর জন্য 10-12টি বেরির নরম পাতায় 2-3টি কালো গোলমরিচ যোগ করে পিষে নিন। সকালে এবং সন্ধ্যায় এটি খান। এতে করে পাথর সহজেই কেটে যাবে এবং প্রস্রাব থেকে বার বের হবে।


বেরি খাওয়ার স্বাস্থ্য উপকারিতা

ডায়াবেটিস

করলার গুঁড়া, মেথি গুঁড়া, নিম, চিরাটা এবং জাম কার্নেলের গুঁড়া একটি গ্রাইন্ডারে পিষে নিন। এর পর খান। দেখবেন কয়েকদিনের মধ্যেই আপনার ব্লাড সুগার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে এসেছে।  

আপনি চাইলে জামের গুঁড়ো করেই খেতে পারেন। এটি দিনে 2-3 বার ব‍্যবহার করুন।

বড় আকারের জাম ফল রোদে শুকিয়ে গুঁড়া তৈরি করুন। দিনে 3 বার 10 থেকে 20 গ্রাম নিন। এটি ব্লাড সুগারে উপকার দেবে। 

দই-দুধের সাথে এই জিনিসগুলো কখনই খাবেন না, পেটে বিষ তৈরি হবে


গাট

আপনি যদি সবসময় বাতের ব্যথায় অস্থির থাকেন, তাহলে জামের মূল খুবই কার্যকরী প্রমাণিত হতে পারে। এ জন্য জামের মূল সিদ্ধ করে পিষে নিন। এরপর জয়েন্টে ঘষলে উপকার পাবেন। 


জাম কিভাবে ব্যবহার করবেন

আয়ুর্বেদ অনুসারে, জাম সীমিত পরিমাণে খাওয়া উচিত। অন্যথায় অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। তাই 10-20 মিলি জামের রস, 3-5 গ্রাম জামের গুঁড়া এবং 50-100 মিলি জামের ক্বাথ পান করুন।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad