ভ্যারিকোজ ভেইনসের সমস্যা থাকলে কি খাবেন? - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Friday, 27 May 2022

ভ্যারিকোজ ভেইনসের সমস্যা থাকলে কি খাবেন?


ভেরিকোজ ভেইনস এর সমস্যাকে স্পাইডার ভেইনও বলা হয়।  এটি শিরা সংক্রান্ত একটি রোগ, যাতে পায়ের শিরাগুলো বের হয়ে নীল দেখাতে শুরু করে। এই স্নায়ুগুলি ফুলে যাওয়ার সাথে সাথে ব্যথা শুরু হয়। এদের রং নীল, বেগুনি ও লাল।  ভ্যারিকোজ শিরা বেশ সাধারণ। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এই সমস্যা মহিলাদের মধ্যে দেখা যায়।  প্রায় ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ মানুষ ভেরিকোজ ভেইনসের সমস্যায় ভুগে থাকেন।  আমাদের শিরাগুলিতে ভালভ রয়েছে যা রক্তকে ফিরে আসতে বাধা দেয়।  কিন্তু যখন এই ভালভগুলি কাজ করা বন্ধ করে, তখন রক্ত ​​আমাদের হার্টের দিকে না গিয়ে শিরায় জমা হয় এবং এই শিরাগুলি বড় হয়ে যায়।  আমাদের শরীরে পায়ের নিচের অংশে ভেরিকোজ ভেইন পাওয়া যায়।  মাধ্যাকর্ষণ শক্তির কারণে, এই শিরাগুলি হৃৎপিণ্ডে রক্ত ​​​​পৌছাতে অক্ষম হয়।  এ জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।  এছাড়াও আপনি আপনার খাদ্যতালিকায় কিছু পরিবর্তন করে এগুলো ঠিক করতে পারেন।


 ভ্যারিকোজ ভেইনস থাকলে কি খাবেন 


 শিরায় রক্ত ​​জমার কারণে ফোলা ও ব্যথা হয়।  খাদ্যাভ্যাসে কিছু পরিবর্তন এনে এগুলো নিরাময় করা যায়।


 1. আপেল


 কলা, আপেল এবং নাশপাতির মতো ফলগুলিতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে।  যা আমাদের শরীরে প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে এবং এই ফলগুলো আমাদের পুরো শরীরকে সুস্থ রাখে।  আপেলে রুটিন নামক একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যৌগ থাকে, যা আমাদের স্নায়ুকে সুস্থ রাখে।  ভেরিকোজ ভেইন এর উপসর্গ কমাতে সালাদ হিসেবেও আপেল খাওয়া যেতে পারে।


 2. বীট


 প্রতিদিন বিটরুট খেলে ভেরিকোজ ভেইন কমানো যায় কারণ বিটরুটে রয়েছে বেটাসায়ানিন নামক একটি যৌগ যা আমাদের শরীরে হেমোসিস্টিন কমাতে সাহায্য করে।  হিমোসিস্টিনের উচ্চ মাত্রার কারণে আমাদের শরীরে রক্ত ​​জমাট বাঁধে।  আপনি আপনার সালাদে বিটরুট খেতে পারেন বা আপনি এর রস বের করে পান করতে পারেন।


 3. আদা


 বিগত বহু বছর ধরে আমরা চা তৈরির পাশাপাশি মসলা হিসেবে আমাদের বাড়িতে আদা ব্যবহার করছি।  এটি ওষুধ হিসেবেও ব্যবহৃত হচ্ছে।  এটি ভ্যারিকোজ কমাতে এবং রক্ত ​​সঞ্চালন বাড়াতে সাহায্য করে।


 4. চেরি


 আপেলের মতো, চেরিতেও রুটিন পাওয়া যায়।  যা আমাদের শরীরে রক্তচাপ ও সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।  এটি আমাদের স্নায়ুকেও সুস্থ রাখে।


 5. হলুদ


 রক্ত সঞ্চালন বাড়ানোর জন্য আয়ুর্বেদ এবং চীনা ওষুধে হলুদের ব্যবহার প্রাচীনকাল থেকেই হয়ে আসছে।  হলুদে রয়েছে কার্কিউমিন নামক উপাদান যা আমাদের শরীরে নাইট্রিক অক্সাইড তৈরিতে সাহায্য করে।  যা আমাদের শরীরে রক্ত ​​সঞ্চালন বাড়াতে সাহায্য করে।


 6. সবুজ শাক সবজি


 আয়রন এবং ম্যাগনেসিয়াম প্রচুর পরিমাণে সবুজ শাক সবজিতে পাওয়া যায়, যা আমাদের শরীরে রক্ত ​​সঞ্চালনের জন্য প্রয়োজনীয়।


 7. কাঁচা বাদাম এবং বীজ


 কাঁচা ফলের মধ্যে রয়েছে ভিটামিন বি৩ যা রক্ত ​​চলাচল বাড়াতে সাহায্য করে।  এতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিনও পাওয়া যায়।  যা রক্ত ​​সঞ্চালন বাড়াতে খুবই উপকারী।


 8. দারুচিনি


 মসুর ডাল এমন এক ধরনের মশলা যা শরীরে রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণে সহায়ক।  মসুর ডালের চিনি বিশেষ করে রক্তনালীকে প্রসারিত ও প্রশস্ত করতে কাজ করে, যাতে আমাদের শরীরে রক্ত ​​চলাচল ঠিক থাকে।


 শুধু তাই নয়, পরিশোধিত কার্বোহাইড্রেট, টিনজাত খাবার, যোগ করা চিনি, ভাজা খাবার, অ্যালকোহল, লাল মাংস, নোনতা এবং উচ্চ ক্যাফেইনযুক্ত পদার্থের ব্যবহার এড়ানোও গুরুত্বপূর্ণ।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad