'মুখ্যমন্ত্রী বা রাজ্যপাল কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়, সংবিধান না মানলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে'- জগদীপ ধনখড় - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 21 June 2022

'মুখ্যমন্ত্রী বা রাজ্যপাল কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়, সংবিধান না মানলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে'- জগদীপ ধনখড়



 রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মধ্যে দ্বন্দ্ব শেষ হওয়ার নামই নিচ্ছে না।  রাজ্যপাল আবারও রাজ্য প্রশাসনকে আক্রমণ করে বলেছেন যে "মুখ্যমন্ত্রী হোক বা রাজ্যপাল, কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়। প্রশাসন যদি আইন না মানে, তাহলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।" মঙ্গলবার, বিধানসভায় বিরোধী নেতা শুভেন্দু অধিকারীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল রাজ্যপালের সাথে দেখা করে এবং রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে বিরোধীদের কণ্ঠস্বর দমন করার অভিযোগ তোলে।  এদিকে, রাজ্যপাল ধনখড় রাজ্য প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা নিয়ে মমতা সরকারের কঠোর সমালোচনা করেছেন।




 রাজ্যপাল বলেন, "নির্বাচনের পরেও বাংলায় সহিংসতা থামেনি।  সহিংসতা বন্ধে সরকার কোনও পদক্ষেপ নিচ্ছে না।  রাজ্য সরকার নির্বাচনের পরেও রাজ্যজুড়ে সহিংসতা বন্ধ করতে ব্যর্থ হয়েছে।”


 

 রাজ্যপাল বলেন, “রাজ্যের প্রতিটি প্রান্তে সিন্ডিকেট এবং মাফিয়া রাজ রয়েছে।  এই ইস্যুতে রাজ্য সরকারকে বারবার তিরস্কার করেছে কলকাতা হাইকোর্ট।  মাফিয়া রাজ, সিন্ডিকেট রাজ রাজ্যের প্রতিটি কোণে কোণে ছড়িয়ে আছে।  বাংলার গণতন্ত্র সর্বস্তরে হুমকির মুখে।  দুর্নীতি ও অবৈধ নিয়োগের কারণে অবহেলিত হচ্ছে হাজার হাজার যুবক।  পুলিশকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিলেও প্রশাসন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হয়েছে।  প্রশাসন ইচ্ছাকৃতভাবে রাজ্যপালের গুরুত্ব বোঝার চেষ্টা করে না।"



তিনি বলেন, "বিধানসভায় বিল এনে আমাকে আচার্যের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।  আমি খুব মনোযোগ দিয়ে বিল পড়ব। আমি পক্ষপাতিত্ব করব না।  যা ঠিক তাই মেনে নেব, নইলে আমি রাজি হব না, কিন্তু অন্যায় করব না।  প্রশাসন হাজার হাজার যুবক-যুবতীকে বিভ্রান্ত করেছে।"  তিনি বলেন, “শাসক দলের মতোই আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি।  এখানে আইনের শাসন নেই।  গণতন্ত্রকে দুর্বল হতে দেব না।  মহাসচিব থেকে শুরু করে রাজ্য সরকারের নিম্নস্তরের সবাই রাজনৈতিক দলের কর্মীদের মতো কাজ করছেন।  ক্ষমতাসীন দল তাদের ইচ্ছামত করছে।  আমি এখনও বিলে স্বাক্ষর করিনি।  আমি প্রতিটি লাইন মনোযোগ সহকারে পড়ব।  তারপর সিদ্ধান্ত নেব।"




 তিনি বলেন, “আমি সবসময় সরকারের বন্ধু হওয়ার চেষ্টা করেছি।  আমি এখনও বন্ধু হতে চাই, কিন্তু একটি শর্ত আছে,  এই সরকারকে গণতান্ত্রিকভাবে চলতে হবে।  এ সরকার প্রতিটি পরিস্থিতিতে গণতন্ত্রকে অবহেলা করেছে।  উপেক্ষা করা হয়।  আমি জুলাই 2019 থেকে গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করছি।  আমি বারবার প্রশাসনকে বলেছি, যারা কয়লা মাফিয়াদের কাছ থেকে গরু পাচার করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হোক।  আমি বারবার তার বিরুদ্ধে কথা বলেছি, কিন্তু প্রশাসন তার কাজ করছে।  এটা কি গণতন্ত্র?  এখানকার মানুষ কি তাদের মুখ খোলার অধিকার হারিয়েছে?  রাজ্যের পরিস্থিতি আগের চেয়ে খারাপ।  মানুষ তাদের গণতন্ত্র হারিয়েছে।  আমি রাজ্যকে একটা কথা বলতে চাই, ভারতীয় সংবিধান খুবই শক্তিশালী।  যদি রাষ্ট্র একটি ফেডারেল কাঠামোতে গণতন্ত্র রক্ষা করতে না পারে, আমি মনে করি এটি হবে।  আইন ও সংবিধান অনুযায়ী কঠোর ব্যবস্থা নেব।  গণতন্ত্র রক্ষা করতে জানি।  রাজ্য যদি সঠিক পথে চলতে পারে তাহলে দেখব সংবিধান অনুযায়ী রাজ্য কীভাবে গণতান্ত্রিকভাবে এগিয়ে যায়।"


No comments:

Post a Comment

Post Top Ad