মন্ত্রীর রঙিন জীবন নিয়ে ট্রোলের বন্যা! মুখ খুললেন তৃণা - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Saturday, 23 July 2022

মন্ত্রীর রঙিন জীবন নিয়ে ট্রোলের বন্যা! মুখ খুললেন তৃণা


এসএসসি নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় তোলপাড় রাজ্য-রাজনীতি। ইতিমধ্যেই ইডির হাতে গ্ৰেফতার হয়েছেন রাজ্যের মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় এবং শনিবার বিকেল নাগাদ গ্ৰেফতার হন পার্থ ঘনিষ্ঠ অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ও। শুক্রবার তার ফ্ল্যাট থেকেই উদ্ধার হয়েছে বস্তা বস্তা টাকা, যার পরিমাণ ২১ কোটিরও বেশি। এছাড়াও স্বর্ণালঙ্কার, বিদেশি মুদ্রা, মোবাইল ফোন, গুরুত্বপূর্ণ একাধিক নথি। 


শুধু অর্পিতাই নয়, পার্থ ঘনিষ্ঠ আরও এক মহিলার নাম উঠে এসেছে এসবের মাঝেই। মোনালিসা দাস, আসানসোলের কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপিকা। ২০১৪ সালে সেখানে কাজে যোগদান এবং বর্তমানে বাংলা বিভাগের প্রধান। সূত্রের খবর, পার্থ চ্যাটার্জির ঘনিষ্ঠ বলেই জানা যায় মোনালিসা দাসকে। মোনালিসার নামে অন্তত ১০টি ফ্ল্যাটের সন্ধান পেয়েছে ইডি। শান্তিনিকেতনেও তার বাড়ি রয়েছে। একজন শিক্ষিকার এত সম্পত্তি নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। যদি মোনালিসা জানিয়েছেন, তাঁর শান্তিনিকেতনে কনও বাড়ি নেই। সংবাদমাধ্যমে যা বলা হচ্ছে, সেই অভিযোগ মিথ্যা।  যা বলা হচ্ছে তা অমূলক। আমি আমার পেশার প্রতি সৎ।'


এছাড়াও সূত্রে জানা গিয়েছে, শান্তিনিকেতনে ২০১৩ সাল থেকে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের নিয়মিত আনাগোনা। অসংখ্য আবাসন প্রকল্পের আসল মালিক তার ঘনিষ্ঠ মহিলারা। জামবুনীর মৃনালিনী আবাসন বা প্রান্তিক ফুলডাঙা এলাকায় এমন প্রায় ৯ টি বিলাসবহুল বাংলো বাড়ির সন্ধান মিলেছে, যেখানে পার্থ চট্টোপাধ্যায় নিজে কোনও বান্ধবী নিয়ে অথবা তৃণমূলের কোনও মন্ত্রী-নেতা তাদের বান্ধবী নিয়ে রাত কাটাতে আসতেন।


এদিকে, এমন খবর প্রকাশ্যে আসতেই সক্রিয় হয়ে উঠেছে, নেট দুনিয়া থেকে বিনোদন দুনিয়া। মন্ত্রীর এই এত বয়সেও নারী সঙ্গ নিয়ে ট্রোলের বন্যা বয়ে গিয়েছে নেট মাধ্যমে। টাকা থাকলেই বয়সটা যে কোনও ব্যাপারই নয়, বেশিরভাগ নেটিজেনরা সেকথাই বোঝাতে চাইছেন মিম শেয়ার করে।


তবে, পার্থ-অর্পিতা ঘনিষ্ঠতা নিয়ে মুখ খুলেছেন খড়কুটোর গুণগুণ তথা জনপ্রিয় অভিনেত্রী তৃণা সাহা। সর্বভারতীয় এক বেসরকারি সংবাদমাধ্যমে তিনি বলেন, নিজের ইচ্ছার বিরুদ্ধে কেউ কাউকে ব্যবহার করে না বা ভুল পথে নিয়ে যেতে পারে না।' এক হাতে কখনও তালি বাজে না-এই প্রবাদ বাক্যও মনে করিয়ে দিয়েছেন অভিনেত্রী। পাশাপাশি তৃণা এও জানিয়েছেন, তিনি অর্পিতাকে চেনেন না।


ওদিকে পার্থ চট্টোপাধ্যায় গ্রেফতার হতেই দল যে তাঁর সঙ্গে দূরত্ব তৈরি করে নিয়েছে, একথা স্পষ্টই বোঝা যাচ্ছে। এখনও পর্যন্ত দলের তরফে পার্থর গ্রেফতারি নিয়ে স্পিক্টি নট। এমনকি পার্থকে কোর্টে তলার আগে তিনি নিজে জানিয়েছিলেন, নেত্রীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তা পারেননি। দলের রাজ্য সম্পাদক কুণাল ঘোষও জানিয়েছিলেন দলের তরফা অবস্থান স্পষ্ট করা হবে। দলের সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ক্যামাক স্ট্রিটের অফিসে এই নিয়ে বৈঠকেও বসেছে তৃণমূল। যেখানে অভিষেক সহ ফিরহাদ হাকিম, কুণাল ঘোষ প্রমুখরা রয়েছেন। 


বিষয়টি নিয়ে অবশ্য কটাক্ষ করতে ছাড়েনই বিজেপি ও বামেরা। অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের বাড়ি থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ উদ্ধার ও পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের গ্রেফতারি প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষ বলেন, 'বলা হয়েছিল, তার মন্ত্রীর কোনও ক্ষতি হলে দেখে নেবেন। দলের মহাসচিব গ্রেফতার হয়েছেন, আর টিএমসি বলছে, অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাদের কোনও যোগাযোগ নেই। দলের পক্ষ থেকে যদি বলা হয় পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গেও তাদের কোনও যোগাযোগ নেই, তাহলে সেটাও অবিশ্বাস্য নয়।'   


অন্যদিকে, বাম নেতা সুজন চক্রবর্তী বলেন, 'বাংলার কুলাঙ্গাররা বাংলার সম্মাঙ্কে নষ্ট করে দিল।' মুখ্যমন্ত্রীকে নিশানা করে তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ যদি অপরাধ করে থাকে, সেই দায় তিনি অস্বীকার করবেন কি করে? রাস্তায় বসে কবে অবস্থান বিক্ষোভ করবেন মুখ্যমন্ত্রী? বলেও খোঁচা দেন সুজন।


তবে এখানেই শেষ নয়। আরও একধাপ এগিয়ে বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ দিল্লীতে তাঁর আবাসনে পূজো করেন তিনি। সেখানে 'ঠাকুর বাংলাকে বাঁচাও' বলেও প্রার্থণা করতেও দেখা যায় তাঁকে। এমনকি তিনি এও বলেন, 'মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় 'ভাইপোকে বাঁচাতে কুমড়ো পটাশ পার্থ'কে গ্রেফতার করিয়েছেন। সৌমিত্র বলেন, 'ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কুড়ি হাজার কোটি টাকার মালিক। তাকেও দ্রুত গ্রেফতারের দাবী জানান তিনি।




    

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad