শিশুদের মধ্যে প্রযুক্তি আসক্তির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া - press card news

Breaking

Post Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, 2 November 2022

শিশুদের মধ্যে প্রযুক্তি আসক্তির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া


শিশুদের মধ্যে মোবাইল ও কম্পিউটারের ক্রমবর্ধমান ব্যবহার তাদের স্মার্ট করে তুলছে, কিন্তু এর অতিরিক্ত ব্যবহার অনেক অসুবিধাও সৃষ্টি করতে পারে।  তাই শিশুদের প্রযুক্তি আসক্তি থেকে রক্ষা করা জরুরি।

 প্রযুক্তি আসক্তি কি?

 প্রযুক্তি অর্থাৎ মোবাইল, কম্পিউটার, ইন্টারনেট আজ আমাদের প্রয়োজনে পরিণত হয়েছে এবং এই প্রযুক্তি জীবনকেও সহজ করেছে।  কিন্তু এই প্রযুক্তি যখন জীবনের প্রয়োজনে পরিণত হয়, তখন এটি এতটাই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে হয় যে এটি ছাড়া কয়েক ঘন্টাও কাটানো কঠিন হয়ে পড়ে।  বেশিরভাগ সময়ই কাটে শুধু মোবাইল বা সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে, এর ফলে আপনি পরিবার, আত্মীয়স্বজন এবং সমাজ থেকেও বিচ্ছিন্ন হতে শুরু করেন, তাহলে বুঝবেন আপনি প্রযুক্তির আসক্তির শিকার হয়েছেন।

 শিশুরা বেশি শিকার হচ্ছে।

 যদিও নির্ধারিত নির্দেশনা অনুযায়ী, ১৫-১৬ বছর বয়সের আগে শিশুদের মোবাইল ফোন বা কম্পিউটার দেওয়া উচিৎ নয়, তবে বর্তমান ব্যস্ত জীবনের বাধ্যবাধকতা বলুন বা সন্তানদের নিরাপত্তার উদ্বেগ বা শিশুদের টেকনোলজিতে পরিণত করার ইচ্ছা। -বান্ধব, বাবা-মায়েরা খুব ছোট। শিশুদের মোবাইল-ল্যাপটপ দেওয়া হয় এবং গ্যাজেট হাতে পেলেই শিশুরা ইন্টারনেট, অনলাইন গেমস, সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংকে তাদের জগৎ করে তোলে।  যদিও প্রযুক্তি আসক্তি কোনো মানসিক রোগ নয়, এর অনেক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকতে পারে।  এই পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সামাজিক, আচরণগত বা স্বাস্থ্য সম্পর্কিত হতে পারে। 

 প্রযুক্তি আসক্তির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

 শিশুটি প্রায়শই ক্লাসরুমেও ঘুমায়।  সে সারাক্ষণ তন্দ্রাচ্ছন্ন থাকে।  তিনি সময়মতো কাজগুলো সম্পন্ন করতে পারছেন না।  তার খাদ্যাভাসও বদলে যায়।  এখন তার না খাওয়ার খেয়াল নেই ঘুমের।  বন্ধুদের সাথে দেখা করার চেয়ে কম্পিউটার বা মোবাইলে বেশি সময় কাটাতে পছন্দ করে।  এছাড়াও কম্পিউটার বা ভিডিও গেম সম্পর্কে মিথ্যা বলে।  তিনি সামাজিক হতে ইতস্তত করেন।  ফ্যামিলি গেট টুগেদার বা আউটডোর খেলা তার কাছে একঘেয়ে লাগে।  অনলাইনে না থাকলে অদ্ভুত অস্থিরতা ও বিরক্তি তার মুখে স্পষ্ট দেখা যায়।  এমনকি যখন সে অফলাইনে থাকে, সে হয় তার আগের অনলাইন ক্রিয়াকলাপগুলি নিয়ে ভাবতে থাকে বা অনলাইনে এসে সে কী করবে তার পরিকল্পনা করে রাখে।  

এ ছাড়া প্রযুক্তির আসক্তি শিশুর স্বাস্থ্য সমস্যাও সৃষ্টি করতে পারে।  তিনি স্থূলতা, উচ্চ রক্তচাপ বা অনিদ্রার শিকার হতে পারেন।  ক্রমাগত পর্দার দিকে তাকানো চোখের উপর চাপ দেয়।  এটি খুব অল্প বয়সে তার দৃষ্টিশক্তি প্রভাবিত করতে পারে।  শিশু কম্পিউটার ভিশন সিন্ড্রোমের শিকার হতে পারে।  একটানা কম্পিউটার, ল্যাপটপ বা মোবাইল ব্যবহারের কারণে ঘাড় ও কাঁধে ব্যথার অভিযোগ করা যেতে পারে।  

ভুল ভঙ্গির কারণেও কম বয়সে পিঠে ব্যথা বা পিঠে ব্যথা হতে পারে।  ক্রমাগত কীপ্যাড ব্যবহার করলে আঙ্গুল ও কব্জিতে ব্যথা হতে পারে।  মোবাইল, কম্পিউটার-ল্যাপটপ বা টিভি- শিশুরা কেবল হেডফোন ব্যবহার করে।  হেডফোনের অতিরিক্ত ব্যবহার শোনার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে।  এতেও ঘনত্ব কমে যায়।

 তাহলে বাবা মা কি করবেন?

 শিশুকে মোবাইল বা কম্পিউটার থেকে সম্পূর্ণ দূরে রাখা কঠিন এবং করা উচিৎ নয়।  এজন্য অভিভাবকদের এমন কিছু উপায় খুঁজে বের করতে হবে যা তারা মোবাইল বা কম্পিউটার ব্যবহার করে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে।  এর জন্য অভিভাবকরা এই কৌশলগুলি ব্যবহার করে দেখতে পারেন।  শিশুকে মোবাইল, ল্যাপটপ বা অন্য কোনো গ্যাজেট দেওয়ার আগে কিছু নিয়মকানুন তৈরি করে নিন এবং শিশুকে আগেই বলে দিন যে তাকে এই নিয়মগুলো মেনে চলতে হবে।  

মনে রাখবেন, কোনো কিছুকে পুরোপুরি নিষিদ্ধ করবেন না, বরং এই গ্যাজেটগুলো ব্যবহারের ব্যাপারে আপনার সন্তানের জন্য একটি সময়সীমা নির্ধারণ করুন।  একটি নির্দেশিকা তৈরি করুন এবং শিশুকে বুঝিয়ে বলুন যে এই নির্দেশিকা তাদের নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনীয়।  গভীর রাত পর্যন্ত শিশুদের মোবাইল, কম্পিউটার বা ইন্টারনেটে থাকতে দেবেন না।  তাদের অনলাইন কার্যকলাপ এবং বন্ধুদের ট্র্যাক। আপনার সন্তানের পাসওয়ার্ড, স্ক্রিন নাম এবং অন্যান্য অ্যাকাউন্টের তথ্য হাতে রাখুন।  আজকাল এমন অনেক সফ্টওয়্যার এবং অ্যাপ পাওয়া যায়, যা বিভিন্ন সাইট এবং তাদের বিষয়বস্তু ফিল্টার করে।  এগুলো আপনার কম্পিউটার এবং মোবাইলে ইন্সটল করুন, যাতে আপনার সন্তান কোনো অপ্রয়োজনীয় সাইট খুলতে না পারে।  

এই প্রযুক্তির অত্যধিক ব্যবহারের অসুবিধাগুলি সম্পর্কেও তাকে ব্যাখ্যা করুন।  বিশ্বাস করুন, একবার বুঝবেন, তারপর সতর্ক হবেন।  আজ যখন বিশ্ব হাইটেক হয়ে উঠছে, তখন শিশুদের প্রযুক্তি থেকে দূরে রাখা সম্ভব নয়, বুদ্ধিমানের কাজও নয়।  এমতাবস্থায় অভিভাবকদের একটি গাইডলাইন তৈরি করতে হবে, শিশুদের প্রযুক্তি আসক্তির সাইট এফেক্ট সম্পর্কে জানাতে হবে, যাতে শিশু প্রযুক্তিবান্ধব হয়ে ওঠে এবং কোনো ক্ষতি না হয়।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad